নাবিকবিহীন বিস্ফোরক বোঝাই ইরানি স্পিডবোট নিয়ে উদ্বেগে আমেরিকা

নাবিকবিহীন বিস্ফোরক বোঝাই ইরানি স্পিডবোট নিয়ে উদ্বেগে আমেরিকা

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ক্ষমতায় আসার পর প্রথমবার দেশটির গোয়েন্দা বিভাগ আন্তর্জাতিক হুমকি নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

আবনা ডেস্ক: মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ক্ষমতায় আসার পর প্রথমবার দেশটির গোয়েন্দা বিভাগ আন্তর্জাতিক হুমকি নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। এই প্রতিবেদনে নতুন পরিভাষা ব্যবহার করে ইরানের বিরুদ্ধে ভিত্তিহীন অভিযোগের পুনরাবৃত্তি করা হয়েছে।
মার্কিন গোয়েন্দা প্রতিবেদনে ইরান, চীন, রাশিয়া ও উত্তর কোরিয়াকে এবং কয়েকটি বেসরকারি সংগঠনকে প্রধান হুমকি বলে অভিহিত করা হয়েছে। পরমাণু ও প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে দাবি করা হয়েছে, ইরানের ব্যালেস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র ব্যাপক গণবিধ্বংসী অস্ত্র বহনে সক্ষম। এই প্রতিবেদন প্রকাশিত হওয়ার আগে গত বৃহস্পতিবার মার্কিন সিনেটে গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে বৈঠক হয়। ওই বৈঠকে উপস্থিত মার্কিন জাতীয় গোয়েন্দা প্রধান ড্যানিয়েল কোটস্‌ ইরানকে আমেরিকার জন্য বড় হুমকি হিসাবে অভিহিত করে বলেছেন, পারস্য উপসাগরে অত্যাধুনিক সমুদ্র মাইন বসানোর পাশাপাশি নাবিকবিহীন দ্রুতগামী স্পিডবোড, অত্যাধুনিক টর্পেডো ও জাহাজ বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েন করছে ইরান।
মার্কিন গোয়েন্দা প্রতিবেদনে এমন সময় ইরানকে হুমকি হিসাবে তুলে ধরা হল এবং ইরানের প্রতিরক্ষার বিরুদ্ধে বক্তব্য দিয়েছে যখন মধ্যপ্রাচ্যসহ সারা বিশ্বে নৈরাজ্য, উত্তেজনা ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির পেছনে আমেরিকার হস্তক্ষেপ ও আগ্রাসন দায়ী। উগ্রবাদ ও সন্ত্রাসবাদ বিস্তারের পেছনেও আমেরিকার হাত রয়েছে। সাবেক মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিন্টনসহ আরো অনেক কর্মকর্তা স্বীকার করেছেন, আল কায়দা ও দায়েশসহ অন্যান্য সন্ত্রাসী গোষ্ঠী সৃষ্টিতে ওয়াশিংটনের হাত রয়েছে।
বিশ্লেষকরা বলছেন, আমেরিকা ও তার মিত্ররা তেলসমৃদ্ধ মধ্যপ্রাচ্যে উত্তেজনা সৃষ্টির জন্যই সন্ত্রাসীদের ব্যবহার করে যুদ্ধের আগুন ছড়িয়ে দিয়েছে। মার্কিন কর্মকর্তারা প্রকৃত সত্য গোপন করে সারা বিশ্বে নিজেদের ধ্বংসাত্মক ভূমিকাকে গঠনমূলক ও ইতিবাচক হিসাবে অর্থাৎ ভালো পুলিশের ভূমিকা পালনকারী হিসাবে তুলে ধরছে। আর অন্যদেরকে বিশ্বের জন্য হুমকি হিসাবে তুল ধরছে।
বাস্তবতা হচ্ছে, আমেরিকা পরিকল্পিতভাবে সারা বিশ্বকে গভীর সংকটে জর্জরিত করেছে এবং তাদের ধারণা এর মাধ্যমে নিজেদের অবস্থানকে শক্তিশালী করা যাবে। কিন্তু আমেরিকার বেপরোয়া ও ঔদ্ধত্যের দিন শেষ হয়ে আসছে। বর্তমান বিশ্ব পরিস্থিতি থেকে আমেরিকার পতনের আলামত ফুটে উঠে। আন্তর্জাতিক বিষয়ক অনেক গবেষক ও লেখক ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং রাশিয়া ও চীনের মতো দেশগুলোর ট্রাম্প বিরোধী অবস্থানের নানা দিক পর্যালোচনা করেছেন।
খ্যাতনামা মার্কিন চিন্তাবিদ নওম চমস্কি সম্প্রতি এক সাক্ষাতকারে ইরানকে হুমকি উল্লেখ করে মার্কিন কর্মকর্তাদের দেয়া বক্তব্যের জবাবে বলেছেন, ইরান নয় বরং আমেরিকাই বিশ্বের জন্য হুমকি হয়ে আছে। তিনি বলেন, প্রেসিডেন্ট ওবামা যতদিন ক্ষমতায় ছিলেন ততদিন তিনি বিশ্বের শান্তির জন্য ইরানকে হুমকি বলে প্রচার চালিয়েছেন। মার্কিন এ চিন্তাবিদ বলেন, ইরানের প্রতিরক্ষা নীতি কেবলই আত্মরক্ষামূলক এবং এ দেশটিকে নিয়ে উদ্বেগের কিছুই নেই। #


আপনার মন্তব্য প্রেরণ করুন

আপনার ই-মেইল প্রকাশিত হবে না। প্রয়োজনীয় ফিল্ডসমূহ * এর মাধ্যমে চিহ্নিত করা হয়েছে

*

پیام امام خامنه ای به مسلمانان جهان به مناسبت حج 2016
We are All Zakzaky
telegram