তেহরানের কড়া জবাব: 'অচিরেই বর্তমান মার্কিন শাসন ব্যবস্থা ধসে পড়বে'

  • News Code : 842089
  • Source : Parstoday
Brief

মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী জেমস ম্যাটিস ইরানের বিরুদ্ধে যে বিদ্বেষপূর্ণ বক্তব্য দিয়েছেন তা থেকে তেহরানের ব্যাপারে তাদের লক্ষ্য উদ্দেশ্যের বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে উঠেছে।

আবনা ডেস্কঃ মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী জেমস ম্যাটিস ইরানের বিরুদ্ধে যে বিদ্বেষপূর্ণ বক্তব্য দিয়েছেন তা থেকে তেহরানের ব্যাপারে তাদের লক্ষ্য উদ্দেশ্যের বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। তিনি গত মঙ্গলবার ডেইলি কলারকে দেয়া সাক্ষাতকারে বলেছেন, ওয়াশিংটন ও তেহরানের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক প্রতিষ্ঠা করতে গেলে ইরানের বর্তমান ইসলামী শাসন ব্যবস্থায় পরিবর্তন আনা জরুরি।
ইরানের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল হোসাইন দেহকান মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী জেমস ম্যাটিসের বক্তব্যের কড়া জবাব দিয়েছেন। ইরানের প্রতিরক্ষামন্ত্রী জেমস ম্যাটিসের বক্তব্যকে নির্লজ্জ বেহায়াপনা ও আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন বলে এর তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন। তিনি মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রীকে জরে আক্রান্ত অসুস্থ ব্যক্তির সঙ্গে তুলনা করেন এবং ইরানের বিষয়ে 'প্রলাপ না বকে' আমেরিকার ঘরোয়া সমস্যাগুলো সমাধানের দিকে মনোযোগ দেয়ার আহবান জানান।
ইরানের প্রতিরক্ষামন্ত্রী অন্য দেশের ব্যাপারে নাক গলানো বন্ধ করতে মার্কিন কর্মকর্তাদের পরামর্শ দেন। তিনি বলেন, ইরান নয় বরং অচিরেই বর্তমান মার্কিন সরকার ও দেশটির শাসন ব্যবস্থা ধসে পড়বে। ব্রিগেডিয়ার জেনারেল হোসাইন দেহকান আরো বলেন, অন্য জাতিগুলোর শক্তির ব্যাপারে উদাসীনতা এবং ইতিহাস সম্পর্কে অজ্ঞতার কারণেই জেমস ম্যাটিসের মতো ব্যক্তিরা কাণ্ডজ্ঞানহীন ও অসংলগ্ন কথাবার্তা বলছেন।
এদিকে, ইরানের বিরুদ্ধে মার্কিন কর্মকর্তাদের চরম বিদ্বেষপূর্ণ বক্তব্যের বিষয়ে ইরানের বাইরেও বেশ প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা গেছে। দৈনিক ওয়াশিংটন পোস্ট এ সংক্রান্ত এক প্রতিবেদনে ইরানে ১৯৫৩ সালের অভ্যুত্থানে আমেরিকার ভূমিকা এবং বর্তমানে ইরানের সরকার ব্যবস্থা উৎখাত করার জন্য মার্কিন কর্মকর্তাদের বক্তব্যের ব্যাপারে লিখেছে, মার্কিন কর্মকর্তারা ইতিহাস ভুলে গিয়ে এমন এক বিপজ্জনক খেলায় মেতে উঠেছেন, যার পরিণতিতে তারা অপমানিত ও পরাজিত হতে পারেন।
ট্রাম্প প্রশাসনের উচিত ইরানে সরকার ব্যবস্থা পরিবর্তনের চিন্তা পুনর্বিবেচনা করা-এমন মন্তব্য করে দৈনিক ওয়াশিংটন পোস্ট আরো লিখেছে, গত মাসের শেষের দিকে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ১৯৫৩ সালে অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ইরানে সরকার উৎখাতে আমেরিকার হাত থাকা সংক্রান্ত শত শত নথিপত্র প্রকাশ করে। এতে দেখা যায়, মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ এবং ব্রিটেনের সহযোগিতায় ইরানের তৎকালীন মোসাদ্দেক সরকারকে উৎখাত করা হয়েছিল। ওই ঘটনা আজো কেউ ভুলে যায়নি।
যাইহোক, বর্তমানেও মার্কিন কর্মকর্তারা ইরানের সরকার উৎখাতের স্বপ্ন দেখছেন। কিন্তু তারা যে ভুল করেছেন তা হচ্ছে, ইরানের ইসলামী সরকারকে তারা জনবিচ্ছিন্ন বলে মনে করছেন এবং তাদের ধারণা হুমকি দিয়ে কিংবা বাধ্য করে ইরান সরকারের পতন ঘটানো যাবে। কিছুদিন আগে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন সিনেটের এক বৈঠকে বলেছেন, অভ্যন্তরীণ কিছু গোষ্ঠীকে ব্যবহার করে শান্তিপূর্ণভাবে ইরানের বর্তমান সরকার ব্যবস্থাকে উৎখাত করা যাবে।
মার্কিন কর্মকর্তাদের এইসব বক্তব্যের জবাবে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বাহরাম কাসেমি তাদেরকে অতীত থেকে শিক্ষা নেয়ার পরামর্শ দিয়ে বলেছেন, মার্কিন কর্মকর্তাদের পরাজয় অবশ্যম্ভাবী। #


আপনার মন্তব্য প্রেরণ করুন

আপনার ই-মেইল প্রকাশিত হবে না। প্রয়োজনীয় ফিল্ডসমূহ * এর মাধ্যমে চিহ্নিত করা হয়েছে

*

Mourining of Imam Hossein
پیام امام خامنه ای به مسلمانان جهان به مناسبت حج 2016
We are All Zakzaky
telegram