ভারতীয় সংসদে বিরোধীদের তুমুল হট্টগোল: উভয়কক্ষ মুলতুবি

ভারতীয় সংসদে বিরোধীদের তুমুল হট্টগোল: উভয়কক্ষ মুলতুবি

আজ সোমবার সংসদের কাজ শুরু হওয়ার পর লোকসভায় টিডিপি, ওয়াই এস আর কংগ্রেস, টিআরএস এবং এআইএডিএমকে সদস্যরা গোলযোগ সৃষ্টি করলে স্পিকার সুমিত্রা মহাজন দুপুর ১২ টা পর্যন্ত অধিবেশনের কাজকর্ম স্থগিত করে দেন।

আবনা ডেস্কঃ ভারতীয় সংসদের উচ্চকক্ষ ও নিম্নকক্ষে বিরোধীদের তুমুল হট্টগোলের জেরে উভয়কক্ষ মুলতুবি করে দেয়া হয়েছে।
আজ সোমবার সংসদের কাজ শুরু হওয়ার পর লোকসভায় টিডিপি, ওয়াই এস আর কংগ্রেস, টিআরএস এবং এআইএডিএমকে সদস্যরা গোলযোগ সৃষ্টি করলে স্পিকার সুমিত্রা মহাজন দুপুর ১২ টা পর্যন্ত অধিবেশনের কাজকর্ম স্থগিত করে দেন। পরে সভার কাজ পুনরায় শুরু হলেও ওয়েলে নেমে বিরোধী সদস্যরা তুমুল হট্টগোল, স্লোগান ও চিৎকার চেঁচামেচি শুরু করেন। তারা ‘উই ওয়ান্ট জাস্টিস’ স্লোগান দিয়ে বিক্ষোভ দেখান। স্পিকার সুমিত্রা মহাজন বার বার সদস্যদের শান্ত হতে এবং নিজ নিজ আসনে ফিরে যাওয়ার আবেদন জানালেও তাতে কান দেননি ওই সদস্যরা। ফলে স্পিকার আগামীকাল মঙ্গলবার বেলা ১১ তা পর্যন্ত অধিবেশনের কাজকর্ম মুলতুবি ঘোষণা করে দিতে বাধ্য হন।
বাজেট অধিবেশনের দ্বিতীয় পর্ব ৫ মার্চ থেকে শুরু হওয়ার পর থেকে পাঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাংকে দুর্নীতি, অন্ধ্র প্রদেশকে বিশেষ রাজ্যের মর্যাদা এবং তেলেঙ্গানায় সংরক্ষণ ইত্যাদি ইস্যুতে প্রায় প্রত্যেক দিনই সংসদের কাজকর্ম বাধাপ্রাপ্ত হচ্ছে।
এদিকে, ওয়াইএসআর কংগ্রেস ও টিডিপির পক্ষ থেকে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাবের নোটিশ দেয়া হলেও সংসদে তুমুল গোলযোগের ফলে এ নিয়ে স্পিকার কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারেননি। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী রাজনাথ সিং বলেন, আমরা আলোচনার জন্য তৈরি আছি। যদিও আনাস্থা নিয়ে আলোচনার পরিবেশ না থাকায় স্পিকার অধিবেশন মুলতুবি করে দেন।
অন্যদিকে, ওয়াইএসআর কংগ্রেস ও টিডিপি কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে বলেছে অনাস্থা প্রস্তাবে বাধা সৃষ্টি করতে এআইএডিএমকে সদস্যরা ইচ্ছাকৃতভাবে কাবেরী পানি বিবাদ ইস্যুতে গোলযোগ সৃষ্টি করেছে। আজ সংসদ চত্বরে টিডিপি ও এআইএডিএমকে সদস্যরা তাদের নিজ নিজ দাবিতে প্ল্যাকার্ড-পোস্টার হাতে নিয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন।
আজ রাজ্যসভায় বেলা ১১ টায় অধিবেশনের কাজ শুরু হলে টিডিপি ও অন্যরা বিভিন্ন ইস্যুতে গোলযোগ সৃষ্টি করেন। চেয়ারম্যান এম বেঙ্কইয়া নাইডু সদস্যদের শান্ত হওয়ার আবেদন জানান। কিন্তু ক্ষুব্ধ সদস্যরা তাতে সাড়া না দেয়ায় মাত্র কয়েক মিনিটের মধ্যেই চেয়ারম্যান অধিবেশনের কাজ আগামীকাল (মঙ্গলবার) পর্যন্ত মুলতুবি ঘোষণা করে দেন।
পশ্চিমবঙ্গের সাবেক মন্ত্রী ও কোলকাতার নব বালিগঞ্জ মহাবিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. আব্দুস সাত্তারের বক্তব্য:
এ প্রসঙ্গে পশ্চিমবঙ্গের সাবেক মন্ত্রী ও কোলকাতার নব বালিগঞ্জ মহাবিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. আব্দুস সাত্তার আজ (সোমবার) রেডিও তেহরানকে বলেন, ‘অন্ধ্র প্রদেশ যখন ভাগ হয়েছিল সেময় তাদের রাজ্য নতুনভাবে গড়ে দেয়ার সুনির্দিষ্ট প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়েছিল। বর্তমান যে কেন্দ্রীয় সরকার, এই সরকার প্রতিশ্রুতি দিয়েপালন করে না। কিছুদিন আগেও তারা ত্রিপুরায় উপজাতিদের আলাদা রাজ্যের দাবিতে সমর্থন দেয়ার কথা বলেছে। দার্জিলিংয়ের ক্ষেত্রেও আমরা প্রতিশ্রুতি দিতে দেখেছি, বিহারের ক্ষেত্রেও বিশেষ প্যাকেজের কথা বার বার শোনা গেছে। ওরা প্রতিশ্রুতি দিয়ে পালন করেন না। তা কৃষকদের ক্ষেত্রে হোক, অথবা বছরে ২ কোটি চাকরি, নোট বাতিলের মাধ্যমে কালো টাকা বন্ধের মধ্য দিয়ে সন্ত্রাস বন্ধ হওয়ার দাবিই হোক সবকিছুতেই তারা প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করেছেন এবং তাদের দাবি মিথ্যা প্রতিপন্ন হয়েছে।’
ড. আব্দুস সাত্তার বলেন, ‘বিজেপি গোটা ভারত জুড়ে যা করেছে, একে অর্থনৈতিক অবস্থা বেসামাল, দ্বিতীয়ত আমাদের মধ্যে যে অটুট বন্ধন ছিল, বৈচিত্রের মধ্যে ঐক্য তা ধ্বংসাত্মক প্রকৃতি নিয়ে হাজির হয়েছে। কে হিন্দু কে মুসলিম, কে শিখ, কে খ্রিস্টান তা বড় করে উপস্থাপন করার চেষ্টা করছে। এখন তাদের এমপিরা বলছেন যে, মন্দির বানানোর জন্য আবার আত্মাহুতি দিতে হবে। ওদের কথার মধ্যে কোনো লাগাম নেই, কারণ তারা জানে যে গোটা দেশে অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে যে বিপর্যয় এসেছে তাতে আগামী লোকসভা নির্বাচনে তাদের জেতা কঠিন হবে। সেজন্য নতুনভাবে মেরুকরণের চেষ্টা চলছে। সাম্প্রতিক যতগুলো উপনির্বাচন হয়েছে রাজস্থান, বিহার, উত্তর প্রদেশে, -এর ফল তাদের পক্ষে যায় নি। বিজেপি এককভাবে ক্ষমতায় বলীয়ান হওয়ায় তাদের অন্য সহযোগীদের সেভাবে গুরুত্ব দেয়নি। ফলে বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোট থেকে অন্য শরিকরা বিভিন্ন ইস্যুতে এখন বিদ্রোহ করছে।’


আপনার মন্তব্য প্রেরণ করুন

আপনার ই-মেইল প্রকাশিত হবে না। প্রয়োজনীয় ফিল্ডসমূহ * এর মাধ্যমে চিহ্নিত করা হয়েছে

*

Pesan Haji 2018 Ayatullah Al-Udzma Sayid Ali Khamenei
We are All Zakzaky