রোহিঙ্গাদের জন্য ২০ শয্যার হাসপাতাল চালু করলো ইরান

মিয়ানমার থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য ২০ শয্যার একটি ভ্রাম্যমাণ হাসপাতাল চালু করেছে ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরান।

আবনা ডেস্কঃ মিয়ানমার থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য ২০ শয্যার একটি ভ্রাম্যমাণ হাসপাতাল চালু করেছে ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরান। ইরানের রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির উদ্যোগে এ হাসপাতাল স্থাপন করা হয়েছে। সোমবার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বা ডাব্লিউএইচও'র প্রতিনিধির উপস্থিতিতে হাসপাতাল উদ্বোধন করা হয়।
এরপর হাসপাতালটি পরিদর্শন করেন স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ের সচিব, কক্সবাজার সিভিল সার্জন সহ অন্যান্য উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাগণ।
রেড ক্রিসেন্ট ইরানের দায়িত্ব প্রাপ্ত মোহাম্মদ হাসান বলেন, ইরানি হাসপাতালে নারী ও প্রসূতি বিভাগসহ বেশ কয়েকটি বিভাগ রয়েছে। এখানে রোহিঙ্গাদের পাশাপাশি স্থানীয়রাও চিকিৎসা নিতে পারবেন।
তিনি আরো বলেন পর্যায়ক্রমে শয্যা সংখ্যা বাড়ানো হবে এবং আমাদের মূল লক্ষ্য আগত রোহিঙ্গাদের বিশেষত যারা এইডস, ডিপথেরিয়া এসব রোগে আক্রান্ত তাদের চিকিৎসা করা।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন ওয়েট এন্ড সি এর প্রজেক্ট ডাইরেক্টর মাওলানা আমজাদ হোসেন।
তিনি বলেন, ইরান সব সময় রোহিঙ্গাদের পাশে ছিল। আমরা ইরানের এ পদক্ষেপকেও স্বাগত জানাচ্ছি। রোহিঙ্গাদের পাশাপাশি স্থানীয়রাও এ হাসপাতাল থেকে উপকৃত হবে।
ইরানের উপ-রাষ্ট্রদূত শাফিয়ি হাসপাতাল প্রতিষ্ঠায় সহযোগিতার জন্য বাংলাদেশের সরকার ও সেনাবাহিনীকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ইরান প্রথম থেকেই রোহিঙ্গা শরণার্থীদের প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে। হাসপাতাল পরিচালনার ব্যয়ও ইরান বহন করবে। হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার জন্য ইরানকে ধন্যবাদ জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বা ডাব্লিউএইচও।
বিশ্বের যেখানেই মানুষের ওপর নিপীড়ন ও নির্যাতনের ঘটনা ঘটে সেখানেই সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে ইরান। এরই অংশ হিসেবে রোহিঙ্গা মুসলমানদের অধিকারের বিষয়ে প্রথম থেকেই সোচ্চার রয়েছে তেহরান।#


আপনার মন্তব্য প্রেরণ করুন

আপনার ই-মেইল প্রকাশিত হবে না। প্রয়োজনীয় ফিল্ডসমূহ * এর মাধ্যমে চিহ্নিত করা হয়েছে

*

conference-abu-talib
We are All Zakzaky