ইমাম জাইনুল আবেদিন (আ)’র শাহাদতবার্ষিকী

ইমাম জাইনুল আবেদিন (আ)’র শাহাদতবার্ষিকী

ইমাম বলেছেন, আমি তাদের ব্যাপারে বিস্মিত যারা ক্ষতির কারণে বিভিন্ন ধরনের খাবার বর্জন করে অথচ তারা কদর্যতার কারণে পাপ বর্জন করে না।

আবনা ডেস্কঃ কারবালা বিপ্লবের বাণী ও কারবালার প্রকৃত ঘটনা পরবর্তী যুগের মুসলমানদের জন্যে সংরক্ষণের বিষয়ে মুসলমানরা জাইনুল আবেদিন ও ইমাম সাজ্জাদ নামে খ্যাত হযরত আলী বিন হুসাইন (আ.)'র কাছে চিরঋণী। তাঁর পবিত্র শাহাদত বার্ষিকী উপলক্ষে সবাইকে জানাচ্ছি গভীর শোক ও সমবেদনা।
ইমাম হুসাইন (আ.)’র পুত্র ইমাম জাইনুল আবেদীন ৩৮ হিজরীর শাবান মাসে তথা খৃষ্টীয় ৬৫৮ সালে মদীনায় জন্ম গ্রহণ করেছিলেন। আল্লাহর অত্যধিক ইবাদত বন্দেগীর কারণে তিনি জাইনুল আবেদীন তথা সাধক বা ইবাদতকারীদের অলংকার উপাধি পেয়েছিলেন। দীর্ঘ সময় ধরে নামাজ ও সিজাদায় রত থাকতেন বলে তিনি সাজ্জাদ নামেও পরিচিত ছিলেন।
ইমাম সাজ্জাদ (আ) কারবালার ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ছিলেন। দশই মহররমের সেই ভয়াবহ ঘটনার দিনে মারাত্মক অসুস্থ থাকায় তিনি জিহাদে যোগ দিতে পারেন নি। ইয়াজিদের সেনারা তাঁকে হত্যা করতে গিয়েও তাঁর ফুপু জাইনাবে'র প্রতিরোধের মুখে এই মহান ইমামকে জীবিত রাখতে বাধ্য হয়। পরবর্তীকালেও আল্লাহর ইচ্ছায় তিনি অলৌকিকভাবে বেঁচে যান। আসলে মহান আল্লাহই এভাবে তাঁকে মুসলিম উম্মাহর নেতৃত্ব দেয়াসহ কারবালার কালজয়ী বিপ্লবের পরবর্তী অসমাপ্ত কাজগুলো সমাপ্ত করা ও এ বিপ্লবের প্রকৃত বাণী মুসলমানদের কাছে পৌঁছে দেয়ার জন্য তাঁকে জীবিত রেখেছিলেন।
কারবালার ঘটনার পর ইমাম জাইনুল আবেদীন ও তাঁর বোন হযরত জাইনাব (সা.) যদি জীবীত না থাকতেন তাহলে কারবালার শহীদদের আত্মত্যাগ ও অন্যায়ের বিরুদ্ধে সংঘটিত ঐ বিপ্লবকে নিছক একটা দুর্ঘটনা বলে প্রচার করার ইয়াজিদী চক্রান্ত সফল হতো। উমাইয়া শাসকরা তখন এটাও প্রচার করতো যে ইমাম হুসাইন (আ.) ইয়াজিদের মতো তাগুতি শাসকের শাসন মেনে নিয়েছিলেন। আর এর ফলে পবিত্র ইসলাম ধর্মকে অবিচারের ব্যাপারে আপোষকামী ধর্ম হিসেবে প্রতিষ্ঠা করার ষড়যন্ত্রও সফল হতো। কিন্তু মহান আল্লাহর ইচ্ছায় হযরত ইমাম সাজ্জাদ (আ) ও নবী-নাতনি হযরত জাইনাব (সালামুল্লাহি আলাইহা) কারবালা থেকে বন্দী অবস্থায় কুফা ও দামেস্কে যাবার পথেই স্বল্প সময়ে জনগণকে জানিয়ে দেন যে কারবালায় প্রকৃত ঘটনা কি ঘটেছিল এবং কারা ছিল ইসলামের জন্যে নিবেদিত-প্রাণ ও কারা ছিল ইসলামের লেবাসধারী জালেম শাসক মাত্র।
কুফায় ইবনে জিয়াদের দরবারে এবং দামেস্কে ইয়াজিদের দরবারে জাইনুল আবেদীনের তেজোদৃপ্ত ও সাহসী ভাষণ জনগণের মধ্যে এমন জাগরণ সৃষ্টি করে যে পরবর্তীকালে সে জাগরণের জোয়ারে ভেসে গিয়েছিল তাগুতি উমাইয়া শাসকদের তাখতে তাউস।
ইমাম সাজ্জাদ (আ.) কারবালায় নবীবংশের ওপর উমাইয়া শাসক ইয়াজিদের পাশবিক হত্যাযজ্ঞ এবং এক অসম লড়াইয়ে ইমাম হুসাইন (আ.)সহ ও তাঁর নিবেদিত-প্রাণ সঙ্গীদের বীরত্বব্যাঞ্জক শাহাদতসহ নবী-পরিবারের মহিলাদের সাথে অন্যায় আচরণের মতো ঘটনাগুলোর স্মৃতি মুসলিম মানসে চিরজাগরুক রাখার ব্যবস্থা করেছিলেন। তিনি এ লক্ষ্যে কারবালার ঘটনার স্মরণে আজাদারি, মাতম ও শোক অনুষ্ঠানের প্রচলন করেছিলেন। ফলে শোক পরিণত হয়েছিল ঈমানী শক্তিতে তথা অত্যাচারের বিরুদ্ধে সংগ্রামের একটি শক্তিশালী হাতিয়ারে। এভাবে মহান ও বীর শহীদদের রক্ত বিজয়ী হয় জালিমের তরবারির ওপর।
কারবালার ঘটনার পর ইমাম সাজ্জাদ (আ.) যখনই পানি দেখতেন বাবাসহ কারবালার শহীদদের চরম পিপাসার কথা ভেবে কান্নায় ভেঙ্গে পড়তেন। কোনো ভেড়া বা দুম্বা জবাই করার দৃশ্য দেখলেও কেঁদে আকুল হতেন। তিনি প্রশ্ন করতেন এই পশুকে জবাইর আগে পানি পান করানো হয়েছে কিনা। পানি দেয়া হয়েছে একথা শোনার পর তিনি বলতেন,কিন্তু আমার (তৃষ্ণার্ত ও ক্ষুধার্ত)বাবাকে পানি না দিয়েই জবাই করেছিল ইয়াজিদ-সেনারা। ইমাম জাইনুল আবেদীন সব সময় দিনে রোজা রাখতেন ও পুরো রাত জেগে ইবাদত করতেন। রোজা ভাঙ্গার সময় তিনি বাবার ক্ষুধার্ত ও পিপাসার্ত অবস্থার কথা উল্লেখ করে এত বেশি কাঁদতেন যে অশ্রুতে খাবার ভিজে যেত এবং খাবার পানিতেও অশ্রু মিশে যেত। জীবনের শেষ পর্যন্ত এই অবস্থা ছিল তাঁর। একদিন তাঁর খাদেম ইমামের কান্নারত অবস্থায় তাঁকে বলেন: আপনার দুঃখ ও আহাজারি শেষ হয়নি? উত্তরে তিনি বলেন:
ইয়াকুব (আ.) আল্লাহর একজন নবী ছিলেন। তাঁর ১২ জন সন্তান ছিল। কিন্তু আল্লাহ তাঁর এক পুত্র ইউসুফকে চোখের আড়ালে রাখায় শোকে,দুঃখে ও অতিরিক্ত কান্নায় তিনি প্রায় অন্ধ হয়ে পড়েন,চুল পেকে যায় ও পিঠ বাঁকা হয়ে যায়। সন্তান জীবিত থাকা সত্ত্বেও তাঁর এ অবস্থা হয়েছিল। আর আমি আমার পিতা,ভাই এবং পরিবারের ১৮ জন সদস্যকে মাটিতে পড়ে যেতে ও শহীদ হতে দেখেছি;তাই কিভাবে আমার দুঃখ ও অশ্রু থামতে পারে?'
কারবালার বিপ্লবের ধারাবাহিকতা ও এর প্রভাব ছড়িয়ে দেবার প্রচেষ্টার পাশাপাশি ইমাম সাজ্জাদ ইসলামের নামে বিকৃত চিন্তা ও কুসংস্কার মোকাবেলার জন্যে জনগণের মধ্যে পবিত্র কুরআন-হাদীসের প্রকৃত শিক্ষা ছড়িয়ে দিতে থাকেন। ফলে তাঁর সুযোগ্য ছাত্ররা পরবর্তীকালে মুসলিম জাহানকে জ্ঞান ও সত্যের পথে নেতৃত্ব দিতে সক্ষম হন। ইমাম জাইনুল আবেদীন বা ইমাম সাজ্জাদ (আ.) যোগ্যতা ও গুণাবলীতে ছিলেন এমন এক উচ্চতর স্থানে যার ওপরে রয়েছে শুধু নবী-রাসূল ও তাঁর পিতা ও পিতামহের স্থান।
তাঁর সুনাম শুধু রাসূল (সা.)’র প্রিয় দৌহিত্রের সুযোগ্য পুত্র বা আহলে বাইতের সদস্য হিসেবে নয়,তাঁর অকল্পনীয় মাত্রার ইবাদত, উদারতা, খোদাভীরুতা, খোদার ভয়ে ক্রন্দন, অতুল জ্ঞান,দানশীলতা ও বিনয়ের সুনামও ছড়িয়ে পড়েছিল সর্বত্র।
ইমাম জাইনুল আবেদীন(আ.) সফরে বের হলে অপরিচিত ব্যক্তির কাছে কখনও রাসূলের বংশধর বলে পরিচয় দিতেন না যাতে লোকজন তাঁকে বিশেষ চোখে না দেখে। সত্য প্রচারে তাঁর সাহসিকতার প্রমাণ কুফা ও দামেস্কের দরবারেই সিমীত ছিল না। একবার খলিফা আবদুল মালিক ইমাম সাজ্জাদের (আ.) কাছে কিছু উপদেশ প্রার্থনা করলে তিনি বললেন,পবিত্র কুরআনের উপদেশের চেয়ে বড় উপদেশ কি হতে পারে? পবিত্র কুরআনে বলা হয়েছে-যারা ওজনে কম দেয় তাদের জন্যে আক্ষেপ! যখন কম ওজনদাতার ব্যাপারে আল্লাহ এতো কঠোর কথা বলেছেন তখন তার অবস্থা কেমন হতে পারে যে জনগণের সমস্ত সম্পদ লুট করেছে?
সহিফায়ে সাজ্জাদিয়া ইমাম জাইনুল আবেদীনের (আ.) এক অনন্য সৃষ্টি। ইমাম সাজ্জাদের বেশিরভাগ বিখ্যাত দোয়া স্থান পেয়েছে এ সংকলনে। মত প্রকাশের ওপর নিষেধাজ্ঞা থাকায় তিনি তাঁর বিভিন্ন প্রাণস্পর্শী দোয়া, আকুতি,মোনাজাত ও বাণীর মাধ্যমে মানুষকে বিভিন্ন দিকে শিক্ষা দিয়ে গেছেন। এসব দোয়ায় আত্মিক পরিশুদ্ধির জ্ঞান ছাড়াও রয়েছে খোদা পরিচিতি, বিশ্বদৃষ্টি, মানুষের পরিচিতি,সামাজিক,সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক দিক নির্দেশনা।
এছাড়াও রিসালাতুল হুকুক নামে ইমামের একটি পুস্তিকা রয়েছে। এতে মানুষের ওপর মহান আল্লাহর অধিকারসহ নানা ধরনের অধিকারের বর্ণনা রয়েছে। ইমাম সাজ্জাদ (আ.)’র রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক তৎপরতা যখন সমাজকে গভীরভাবে প্রভাবিত করে তখন তা উমাইয়া শাসকদের জন্যে অসহনীয় হয়ে ওঠে। তাই তৎকালীন উমাইয়া শাসক ওলীদ বিন আবদুল মালিক ইমামকে বিষ প্রয়োগে শহীদ করে। কিন্তু ইমাম সাজ্জাদের পথ নির্দেশনা তাঁর সন্তান ও অনুসারীদের মাধ্যমে অমর হয়ে আজো আলো বিকিরণ করে চলেছে।
ইমাম সাজ্জাদ (আ.)'র শাহাদত বার্ষিকী উপলক্ষ্যে আরো একবার গভীর শোক এবং সমবেদনা জানাচ্ছি। ইমাম বলেছেন,
- আমি তাদের ব্যাপারে বিস্মিত যারা ক্ষতির কারণে বিভিন্ন ধরনের খাবার বর্জন করে অথচ তারা কদর্যতার কারণে পাপ বর্জন করে না।
- তোমরা বেহেশতে সর্বোচ্চ স্থান লাভের চেষ্টা করবে। তোমরা মনে রেখো যারা অপর ভাইয়ের প্রয়োজন মেটায় এবং দীন-দুঃখীদের সাহায্য করে কেবল তাদেরকেই বেহেশতে সর্বোচ্চ স্থান দেয়া হয়ে থাকে।#


আপনার মন্তব্য প্রেরণ করুন

আপনার ই-মেইল প্রকাশিত হবে না। প্রয়োজনীয় ফিল্ডসমূহ * এর মাধ্যমে চিহ্নিত করা হয়েছে

*

Pesan Haji 2018 Ayatullah Al-Udzma Sayid Ali Khamenei
We are All Zakzaky