রেক্স টিলারসন একজন রাজনৈতিক ব্যবসায়ী ; হাশদ আশ শাবির কমান্ডার

রেক্স টিলারসন একজন রাজনৈতিক ব্যবসায়ী ; হাশদ আশ শাবির কমান্ডার

ইরাকের মোবিলাইজেশন ফোর্স তথা গণবাহিনীর (হাশ্‌দ আশ শাবি) এক কমান্ডার এ বাহিনীর বিরুদ্ধে তোলা মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর অভিযোগের জবাবে ‘রেক্স টিলারসন’কে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের চতুর্পাশে ঘিরে থাকা ব্যবসায়ীদের মধ্যে একজন রাজনৈতিক ব্যবসায়ী বলে আখ্যায়িত করেছেন।

আহলে বাইত (আ.) বার্তা সংস্থা (আবনা): বাগদাদের সাবেক প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য গত শুক্রবার (২৭ অক্টোবর) ইরানের বার্তা সংস্থা ইরনাকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, ‘রেক্স টিলারসন, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের চতুর্পাশে ঘিরে থাকা ব্যবসায়ীদের মধ্যে একজন রাজনৈতিক ব্যবসায়ী। তার এ মন্তব্যকে একজন রাজনীতিকের মন্তব্য বলে গ্রহণ করা যায় না’।
তিনি বলেন: সৌদি আরবে করা টিলারসনের মন্তব্য, হাশদ আশ শাবির সদস্যদেরকে অইরাকি বলে আখ্যায়িত করা এবং ইরাক ভূখণ্ড থেকে হাশদ আশ শাবিকে বের করে দেওয়ার আহবান বাস্তবতা বিরোধী। যুক্তরাষ্ট্র ভালভাবেই জানে যে, বাস্তবতা কি?
তার ভাষ্যমতে, এ মন্তব্যের পর টিলারসনের রাজনৈতিক বোধগম্যতা ইরাকি জনগণের হাসির রসে পরিণত হয়েছে।
আল-কাযেমি বলেন: রিয়াদকে সন্তুষ্ট করতে এবং হাশদ আশ শাবির উপর চাপ সৃষ্টির যে দাবি সৌদি আরব জানিয়ে আসছে তার প্রতি একাত্মতা ঘোষণা করতেই মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ মন্তব্য করেছেন।
ইরাকের মোবিলাইজেশন ফোর্সের এ কমান্ডারের সংযোজন: আশ্চর্যের বিষয় হল, টিলারসনের এ মন্তব্যের সময়সময়ে হাজ আবু মাহদি আল-মুহান্দিসের বিষয়ে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্রকে করা প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেছেন, ‘মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তাকে সন্ত্রাসীদের তালিকাভূক্ত করেছে’।
মুঈন আল-কাযেমি বলেন: আবু মাহদি আল-মুহান্দিস এবং তার সহযোদ্ধারা সন্ত্রাসবাদ ও দায়েশ বিরোধী যুদ্ধ এবং দায়েশের কবল থেকে ইরাক ও বিশ্বকে মুক্ত করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন।
তিনি বলেন: মার্কিনীরা যে নীতি অবলম্বন করেছেন, তা হচ্ছে স্বার্থ ভিত্তিক। অর্থাৎ যারা তাদের স্বার্থ ও অবস্থানের পক্ষে কথা বলবে তারা মানবাধিকারের রক্ষক ও সন্ত্রাসবাদ বিরোধী, যদিও তারা অপরাধী হয়ে থাকে। আর যারা সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী এবং মধ্যপ্রাচ্য ও বিশ্বে সন্ত্রাসীদের ষড়যন্ত্রের বিরোধী তাদের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদের সহযোগিতাসহ বিভিন্ন অভিযোগ উত্থাপন করা হয়।
তিনি তার দাবির স্বপক্ষে ইয়েমেনের জনগণের কথা উল্লেখ করে বলেন: বিগত কয়েক বছর ধরে ইয়েমেনের নারী-শিশু নির্বিশেষে সাধারণ জনগণ হত্যা এবং দেশটিতে মহামারি আকারে বিভিন্ন ব্যাধির দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার মত ঘটনা একটি পরিকল্পিত নীতির বাস্তবায়নের ফলে ঘটছে, যুক্তরাষ্ট্র এর বিপরীতে কখনই অবস্থান নেয়নি।
ইরাকে দায়েশ বিরোধী যুদ্ধে বর্তমান পরিস্থিতির প্রতি ইঙ্গিত করে তিনি বলেন: দায়েশকে নির্মূল করার লক্ষ্যে ইরাকের আল-আনবার প্রদেশের কায়েম ও রাভাহ থেকে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। খুব শীঘ্রই ইরাক থেকে দায়েশ বিতাড়িত হবে বলে আমরা আশাবাদী।
তিনি বলেন, আমরা আশা করছি যে, আগামী কয়েকদিনের মধ্যেই আল-আনবার প্রদেশের পশ্চিম অঞ্চল পরিচালিত এ অভিযান সমাপ্ত হবে। কারণ আমরা নিশ্চিত যে, একদিকে দায়েশের মনোবল ভেঙ্গে পড়েছে, অপরদিকে ইরাকি বাহিনী ও হাশদ আশ শাবি’র মনোবল এখন তুঙ্গে।# ইরনা


সম্পর্কিত প্রবন্ধসমূহ

আপনার মন্তব্য প্রেরণ করুন

আপনার ই-মেইল প্রকাশিত হবে না। প্রয়োজনীয় ফিল্ডসমূহ * এর মাধ্যমে চিহ্নিত করা হয়েছে

*

quds cartoon 2018
پیام امام خامنه ای به مسلمانان جهان به مناسبت حج 2016
We are All Zakzaky