বৈরুতে,

মার্কিন দূতাবাসের সামনে বিক্ষোভ, উপড়ে ফেলা হল দূতাবাসের দরজা

মার্কিন দূতাবাসকে তেলআবিব থেকে পবিত্র কুদস শহরে সরিয়ে নেয়ার বিষয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে বিশ্বজুড়ে নিন্দার ঝড় উঠেছে। এ সিদ্ধান্তের বিরোধিতায় মার্কিন দূতাবাসের সামনে বিক্ষোভ করেছে বৈরুতের জনগণ। এ সময় বিক্ষুব্ধ জনতাকে বিচ্ছিন্ন করতে জলকামান ও টিয়ার গ্যাস ব্যবহার করেছে পুলিশ।

হলে বাইত (আ.) বার্তা সংস্থা (আবনা): পবিত্র কুদস রক্ষায় লেবাননের রাজধানী বৈরুতের উত্তরাঞ্চলে অবস্থিত মার্কিন দূতাবাসের সামনে আজ (রোববার, ১০ ডিসেম্বর) বিক্ষোভ করেছে লেবাননের জনগণ।

আল-মায়াদিনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কুদস বিরোধী সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে ইসরাইলি পতাকা পোড়ানো হয়েছে এবং ডোনাল্ড ট্রাম্পের কুশপুত্তলিকা দাহ করা হয়েছে।

আল-মানার জানিয়েছে, এ সময় লেবানন থেকে মার্কিন রাষ্ট্রদূতকে বহিস্কারের দাবী জানায় বিক্ষুব্ধ জনতা।

এদিকে, মার্কিন দূতাবাসের চারপাশে সমবেত জনতাকে বিচ্ছিন্ন করতে জলকামান ও টিয়ার গ্যাস ব্যবহার করেছে পুলিশ।

আল-মায়াদিনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিক্ষুব্ধ জনতা মার্কিন দূতাবাসের মূল প্রবেশ দরজা উপড়ে ফেলে। এরপর পুলিশ তাদেরকে পিছু হটতে বাধ্য করে।

এ সংঘর্ষে ২ বিক্ষোভকারী আহত হয়েছে বলে জানা গেছে।

লেবাননের এমটিভি’র এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, লেবাননের কম্যুনিস্ট পার্টির মহসচিব ‘হেনা গারিব’ বিক্ষোভকারীদের উদ্দেশ্যে বক্তৃতা কালে যুক্তরাষ্ট্রকে ‘আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদের পতাকাবাহী’ বলে আখ্যায়িত করেন।

হেনা গারিব, যুক্তরাষ্ট্রকে ‘ফিলিস্তিন ও সকল মুক্তিকামী জাতির শত্রু’ বলে আখ্যায়িত করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে সকল প্রকার সহযোগিতা স্থগিত করার জন্য লেবানন ও আরব দেশগুলোর প্রতি আহবান জানান। পাশাপাশি বৈরুত থেকে মার্কিন রাষ্ট্রদূতকে বহিস্কারের জন্য তিনি লেবানন সরকারের প্রতি আহবান জানান।

এ ঘটনার পর পুলিশ মার্কিন দূতাবাসের দিকে আসা সকল রাস্তা বন্ধ করে দেয়। বিক্ষোভের আগে বিপুল সংখ্যক পুলিশসহ দাঙ্গা বাহিনী মার্কিন দূতাবাসের চতুর্পাশে অবস্থায় নেয়।

আল-মানার জানিয়েছে, বিক্ষোভকারীরা মার্কিন রাষ্ট্রদূতকে বহিস্কারের দাবী জানায় এবং এ সময় তাদেরকে ট্রাম্প বিরোধী বিভিন্ন শ্লোগান দিতে দেখা যায়। তাদের শ্লোগানগুলোর মধ্যে ‘আমাদেরকে সশস্ত্র করে মসজিদুল আকসায় প্রেরণ করুন’ এবং ‘রাষ্ট্রদূত এখান থেকে চলে যাও’… ইত্যাদি অন্যতম।

ম্যারোনাইট ক্যাথোলিক নেতা বাশশারাহ পেট্রোস আর-রায়ী বলেছেন, ‘কুদস ইস্যুতে আন্তর্জাতিক সিদ্ধান্ত ভঙ্গ করেছেন ট্রাম্প’।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বেশ কয়েকজন বিক্ষোভকারীকে আটক করা হয়েছে বলে জানা গেছে।# ফার্সনিউজ


আপনার মন্তব্য প্রেরণ করুন

আপনার ই-মেইল প্রকাশিত হবে না। প্রয়োজনীয় ফিল্ডসমূহ * এর মাধ্যমে চিহ্নিত করা হয়েছে

*

quds cartoon 2018
We are All Zakzaky