বার্লিন ঘটনা সন্ত্রাসী হামলা, ধারণা পুলিশের

  • News Code : 799671
  • Source : bdnews24
জার্মানির বার্লিনে ক্রিসমাস মার্কেটে ভিড়ের উপর লরি চালিয়ে দিয়ে ১২ জনকে হত্যার ঘটনা সন্ত্রাসী হামলা হিসেবে বিবেচনা করে তদন্ত এগিয়ে যাচ্ছে পুলিশ।

আবনা ডেস্ক: জার্মানির বার্লিনে ক্রিসমাস মার্কেটে ভিড়ের উপর লরি চালিয়ে দিয়ে ১২ জনকে হত্যার ঘটনা সন্ত্রাসী হামলা হিসেবে বিবেচনা করে তদন্ত এগিয়ে যাচ্ছে পুলিশ।
সোমবার স্থানীয় সময় রাত ৮টার দিকে বার্লিনের প্রাণকেন্দ্র ব্রাইটশেইডপ্লাৎজে রাস্তার পাশে একটি মার্কেটে ভিড়ের উপর লরি চালিয়ে দেওয়ার ঘটনায় ১২ জন নিহত এবং কমপক্ষে ৪৮ জন আহত হয়।
আহতদের মধ্যে চারজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।
মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলা মেরকেল বলেন, “এ ঘটনাকে আমরা একটি সন্ত্রাসী হামলা বলেই বিবেচনা করছি।”
“হামলার পেছনে যারা রয়েছে তাদের আইন অনুযায়ী কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।”
হামলার পর আটক সন্দেহভাজন লরি চালক পাকিস্তানের নাগরিক বলে ধারণা করা হচ্ছে, যিনি গত বছর শরণার্থী হিসেবে জার্মানিতে প্রবেশ করেন।
জার্মানির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী টমাস ডি মেজিয়্যা বলেন, খুব সম্ভবত ওই ব্যক্তি পাকিস্তান থেকে এসেছেন। তার আশ্রয় প্রার্থনার আবেদন নিয়ে এখনও কাজ শুরু হয়নি।
যদিও আটক ব্যক্তি এ ঘটনায় জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করেছেন বলেও জানান তিনি। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ।
এ বিষয়ে বার্লিন পুলিশ প্রধান ক্লাউস ক্যান্ট বলেন, “সন্দেহভাজন আটক ব্যক্তিই লরিটি চালাচ্ছিলেন কিনা তা আমরা এখনো নিশ্চিত হতে পারিনি।”
জার্মানির কয়েকটি গণমাধ্যমে আটক সন্দেহভাজন ব্যক্তি পাকিস্তানের নাগরিক নভেদ বি (২৩) বলে খবর প্রকাশ হয়েছে।
খবরে বলা হয়, গত বছর শেষ দিকে বা এ বছরের শুরুর দিকে সে জার্মানি প্রবেশ করেছে।
জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলা মেরকেল বলেন, একজন শরণার্থী এ কাণ্ড ঘটিয়েছে যদি সেটা প্রমাণ হয় তবে তা ‘অত্যন্ত পীড়াদায়ক’ হবে।
আটক সন্দেহভাজন লরি চালক বার্লিন বিমানবন্দরের কাছে একটি শরণার্থী শিবিরে বসবাস করতো বলে ধারণা করছে পুলিশ। সেখানে তল্লাশি অভিযান চালানো হয়েছে।
বিবিসির খবরে বলা হয়, এর আগে ছোটখাট অপরাধের জন্য পুলিশের খাতায় আটক ব্যক্তির নাম আছে। তবে তার সঙ্গে জঙ্গিদের যোগাযোগের কোনো তথ্য পুলিশের কাছে নেই।
ইস্পাত বহনকারী লরিটি যখন বাজারে ঢুকে পড়ে, কাঠের ছোট ছোট দোকানগুলো তখন পর্যটক আর স্থানীয় ক্রেতাদের ভিড়ে জমজমাট। ওই ভিড় মাড়িয়েই লরি নিয়ে ৫০ থেকে ৮০ মিটার এগিয়ে যায় চালক।
পরে লরির চালক সন্দেহে একজনকে আটক করে বার্লিন পুলিশ। গাড়ির ভেতরে আরেকজনকে মৃত অবস্থায় পাওয়া গেছে।
পুলিশের মুখপাত্র উইনফ্রিড ওয়েনজেল বলেন, “ঘটনার পর সন্দেহভাজন আটক ব্যক্তি লরি থেকে নেমে পালিয়ে যাওয়ার জন্য প্রায় দুই কিলোমিটার দৌড়ানোর পর একটি পাবলিক পার্কের কাছ থেকে তাকে আটক করা হয়।”
“একজন প্রত্যক্ষদর্শী যিনি তাকে অনুসরণ করছিল তিনিই পুলিশকে খবর দেন এবং পুলিশ দ্রুত ওই ব্যক্তিকে আটক করে।”
লরির মধ্যে চালকের পাশের আসনে যে মৃতদেহটি পাওয়া গেছে তিনিই মূলত লরির চালক ছিলেন বলেও ধারণা করছে পুলিশ। মৃত ওই ব্যক্তি পোল্যান্ডের নাগরিক ছিলেন।
লরির মালিক অ্যারিয়েল জুরাউইস্কিও পোল্যান্ডের নাগরিক। তিনি জানান, স্থানীয় সময় সোমবার বিকাল ৪টা থেকে লরিসহ তার চালক নিখোঁজ ছিল।
গত জুলাইয়ে ফ্রান্সের নিস শহরে একটি উৎসবের ভিড়ে ট্রাক চালিয়ে দিয়ে ৮৬ জনকে হত্যা করা হয়। পরে পুলিশের গুলিতে নিহত হন হামলাকারী ট্রাকচালক। মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী আইএস ওই হামলার দায় স্বীকার করে।
ওই ঘটনার ছয় মাসের মাথায় ক্রিসমাসের উৎসবের মৌসুমে বার্লিনে দৃশ‌্যত একই ধরনের ঘটনায় জার্মানিতে নেমে এসেছে শোকের ছায়া।


আপনার মন্তব্য প্রেরণ করুন

আপনার ই-মেইল প্রকাশিত হবে না। প্রয়োজনীয় ফিল্ডসমূহ * এর মাধ্যমে চিহ্নিত করা হয়েছে

*

Pesan Haji 2018 Ayatullah Al-Udzma Sayid Ali Khamenei
We are All Zakzaky