সৌদি আরবের বর্তমান পরিস্থিতির উপর বিশেষ প্রতিবেদন

  • News Code : 316794
  • Source : আবনা
সৌদি আরবে গণবিক্ষোভের সর্বশেষ খবরা-খবর। / সৌদি আরবে মানবাধিকার পরিস্থিতির উপর জেনেভায় পর্যালোচনা বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। / সৌদি আরবে শিয়া ব্যক্তিত্ব গ্রেপ্তার। / সৌদি আরবে বিপ্লব অতি নিকটেই। / সৌদি আরবে ধারবাহিক আত্মহত্যার ঘটনা / সৌদি আরবের ক্ষমতার লোভের বিরোধিতায় মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন জাতি / জায়নবাদীদেরকে সহযোগিতা করছে সৌদি এক কোম্পানী / বাহরাইন ও সৌদি আরবের একীভূত হওয়ার পরিকল্পনার কোন ফলাফল পাওয়া সম্ভব নয়। / সৌদি আরবের বাদশাহ’র পরিকল্পনার আনুষ্ঠানিক প্রতিবাদ জানিয়েছে কুয়েত। / জেদ্দাহ বন্দরে মার্কিন রনতরী। / জাতিসমূহের সংকল্পের কঠিন তুফান রিয়াদকেও অতি শীঘ্রই গ্রাস করতে যাচ্ছে। / চিকিত্সার জন্য সৌদি যুবরাজের পূনরায় সফর...

আহলে বাইত (আ.) বার্তা সংস্থা আবনার রিপোর্ট : সৌদি আরবের সামাজিক ও রাজনৈতিক অবস্থা দিনের পর দিন গুরুতর হচ্ছে। মধ্যপ্রাচ্যে প্রাধান্য বিস্তারের লক্ষ্যে সৌদি আরব কর্তৃক প্রতিবেশী দেশসমূহের অভ্যন্তরিন বিষয়ে হস্তক্ষেপের বিরোধিতা জানিয়েছে বেশ কিছু প্রতিবেশী রাষ্ট্র। আর এ বিষয়টি এ সকল দেশের সাথে সৌদি আরবের সম্পর্কের অবনতি ঘটার অন্যতম কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এদিকে সৌদি আরবের শাসক পরিবার এদেশের অভ্যন্তরিন ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র বিষয়ের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করছে এবং মুক্তিকামী সৌদি জনতাকে কঠোর হস্তে দমন করছে।

যা কিছু আগামীতে আসছে তা সৌদি আরবের বিগত কয়েকদিনের সংবাদের একটি বিশেষ প্রতিবেদন।

 

-সৌদি আরবের মানবাধিকার পরিস্থিতির বিষয়ে জেনেভায় পর্যালোচনা বৈঠক

মধ্যপ্রাচ্যের বেসামরিক সংস্থাসমূহ, সৌদি আরবের বর্তমান মানবাধিকার পরিস্থিতির বিষয়ে পর্যালোচনার উদ্দেশ্যে জেনেভায় বৈঠকে বসবে। পর্যালোচনামূলক এ সভাটি আগামী ২৪শে মে, আরব ও পারস্য উপসাগরীয় দেশসমূহসহ অন্যান্য দেশের মানবাধিকার বিষয়ে সক্রিয় ও আইনজীবিদের উপস্থিতিতে জেনেভায় অবস্থিত জাতিসংঘের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এছাড়া বলা হয়েছে যে, ইউরোপের বিভিন্ন মানবাধিকার বিষয়ক আন্তর্জাতিক সংস্থাও এ সভায় অংশগ্রহণ করবে।

 

-সৌদি আরবে শিয়া ব্যক্তিত্ব গ্রেপ্তার

আরবদেশসমূহে মানবাধিকার তথ্য বিষয়ক আরবি নেটওয়ার্ক, সৌদি আরবের জনৈক শিয়া ব্যক্তিত্ব গ্রেপ্তারের নিন্দা জানিয়েছে।

মানবাধিকার তথ্য বিষয়ক আরবি নেটওয়ার্ক কর্তৃক প্রকাশিত এক বিবৃতিতে, সৌদি আরবের নিরাপত্তা বাহিনী কর্তৃক, সৌদি আরবের সরকার বিরোধী ও ওয়াশিংটনে অবস্থিত পারস্য উপসাগর বিষয়ক স্ট্যাডি সেন্টারের প্রধান ‘কামাল আব্বাস আল-আহমাদে’র ভাই ‘আলী আব্বাস আল-আহমাদ’কে গ্রেপ্তারের নিন্দা জানিয়েছে।

বিবৃতিতে মানবাধিকার বিষয়ে সক্রিয় ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে এবং গণতন্ত্র, ধর্ম ও নারী বিরোধী বর্ণবাদী সরকারে কোন প্রকার সংশোধনের বিরুদ্ধে সৌদি সরকারের পদক্ষেপ গ্রহণের বিষয়ে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করা হয়েছে।

এ বিবৃতিতে এসেছে যে, যে সকল স্বৈরাচারী সরকার বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে জনগণকে দমন করে তাদের সবার শীর্ষে রয়েছে সৌদি আরব এবং তারা বাক ও চিন্তা স্বাধীনতার সবচেয়ে বড় শত্রু; সুতরাং মধ্যপ্রাচ্য এবং সারাবিশ্বে যে সকল সংস্থা ও ব্যক্তি মানবাধিকার রক্ষায় সচেষ্ট তাদের উচিত স্বৈরাচারী এ সরকারের উপর চাপ সৃষ্টি এবং এদেশের জনগণ ও এদেশে অবস্থানরত বিদেশীদের বিরুদ্ধে তাদের অপরাধকর্ম বন্ধের লক্ষ্যে অনতিবিলম্বে পদক্ষেপ গ্রহণ করা, যাতে দেশটির বিশ্বের সবচেয়ে বড় কারাগারে রূপান্তরিত না হওয়ার বিষয়ে পথরোধ করা।

মানবাধিকার তথ্য বিষয়ক আরবি নেটওয়ার্ক আরো উল্লেখ করেছে যে, আরব ও অনারব দেশসমূহের উচিত, সৌদি আরবের উপর চাপ সৃষ্টি করা যাতে তারা মানবাধিকারের বিষয়ে তাদের কালো ইতিহাসের পরিবর্তনের চেষ্টা চালায়।

সৌদি নিরাপত্তা বাহিনী সম্প্রতি ‘আলী আব্বাস আল-আহমাদ’কে বিনাকারণে গ্রেপ্তার করে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে গেছে। তিনি প্রথমবারের মত সৌদি বাহিনী কর্তৃক গ্রেপ্তার হননি। ইতিপূর্বেও সৌদি নিরাপত্তা বাহিনী তাকে কোনরূপ কোন কারণ দর্শাও ছাড়াই প্রায় ৯ বছর আটকে রেখেছিল এবং প্রায় দেড় বছর সময় যাবত তার সৌদি আরব ত্যাগের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছিল।

জনাব আলী আব্বাস আল-আহমাদ সৌদি আরবের একজন শিয়া ব্যক্তিত্ব, তিনি ২০০৯ সালে, মসজিদুল হারামের খতিব ‘আদেল আল-কালবানী’র শিয়া বিরোধী তাকফিরী মন্তব্যের প্রকাশ্য বিরোধিতা করেছিলেন।

তিনি সৌদি আরবে মানবাধিকার বিষয়ে সক্রিয় একদল ব্যক্তিত্বের সমন্বয়ে প্রদত্ত এক বিবৃতিতে সৌদি আরবের রাজনৈতিক নেতা ও কর্মকর্তাদেরকে তাকফিরী ফতওয়াসমূহ প্রদান এবং শিয়া ও অন্যান্য মাযহাব বিরোধী সাম্প্রদায়িক বৈষম্যতা সৃষ্টি কারণ হিসেবে উল্লেখ করা হয়।

যদিও তার গ্রেপ্তারের কারণ সম্পর্কে এখনো কিছু উল্লেখ করা হয়নি, কিন্তু ধারণা করা হচ্ছে যে, ওয়াশিংটনে তত্পর তার ভাইকে চাপের মুখে রাখার জন্য এবং তিনি যেন সৌদি আরবের রাজ পরিবারের বিরুদ্ধে সমালোচনা না করেন -এ বিষয়টি রুখতে এ পদক্ষেপ গৃহীত হয়েছে।

সৌদি আরবে জনাব আলী আব্বাস আল-আহমাদের গ্রেপ্তারের ঘটনা তখন ঘটলো, যখন স্বৈরাচারী সৌদি আরব সরকারের নিরাপত্তা বাহিনী এদেশের পূর্ব অঞ্চলীয় প্রদেশ ‘আল-শারকিয়া’র শিয়াদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করছে। এছাড়া গণতন্ত্র, বাক স্বাধীনতা ও গ্রেপ্তারকৃত ১০ হাজার সৌদি নাগরিকের মুক্তির বিষয়ে যে কোন দাবীকে দমন করার লক্ষ্যে লেখক, চিন্তাবিদ ও আইনজীবিদের উপর চাপ সৃষ্টি বৃদ্ধি করেছে।

 

-সৌদি আরবে গণবিপ্লব নিকটেই  

সৌদি আরবের ইসলামপন্থী দল ‘আল-উম্মাহ’ এদেশের স্বৈরাচারী শাসকদের বিভিন্ন পদক্ষেপে, বিশেষতঃ ইয়েমেন গণবিপ্লবের বিষয়ে মার্কিনী যুক্তরাষ্ট্রের পাশে অবস্থানের বিষয়ে হুশিয়ারী উচ্চারণ করে জানিয়েছে যে, সৌদি আরবে বিপ্লব নিকটেই।

ইসলামি দল ‘আল-উম্মাহ’র প্রেসিডিয়াম সদস্য ‘শেইখ মুহাম্মাদ বিন সায়াদ আলে মুফাররাহ’ বলেছেন : সৌদি আরব, যুক্তরাষ্ট্রের পাশাপাশি একই পরিখায় ইয়েমেন এবং এদেশের শান্তিপূর্ণ গণবিপ্লবের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। আর এ পদক্ষেপের মাধ্যমে ইয়েমেনের জনগণের উপর অত্যাচারে বিরোধী সৌদি জনতার সম্মুখে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছে।

শেইখ মুহাম্মাদ বিন সায়াদ বলেন : ইয়েমেনের বিরুদ্ধে স্বৈরাচারী সৌদি সরকারের দায়িত্বহীন ও অনৈতিক পদক্ষেপ হতে স্পষ্ট হয় যে, সৌদি আরবের সাধারণ জনগণ ইয়েমেনের জনগণকে সমর্থন করে।

Download FILES


32 course of competition of Holy Quran
کنگره جریان‏های تکفیری