আলজাজিরার রিপোর্ট ;

কাসেম সুলায়মানির অগোচরে ইরাকে কোন কিছু করা সম্ভব নয় : মার্কিন কর্মকর্তারা

  • News Code : 653854
  • Source : ABNA
Brief

জেনারেল কাসেম সুলাইমানি’র ব্যক্তিত্ব ও জীবনী সম্পর্কে প্রচারিত বিস্তারিত এক প্রতিবেদনে তাকে মধ্যপ্রাচ্যে ইরানের তলোয়ার হিসেবে আখ্যায়িত করেছে আলজাজিরা নিউজ চ্যানেলের তুর্কি বিভাগ।

আহলে বাইত বার্তা সংস্থা (আবনা) : আলজাজিরার তুর্কি বিভাগ জেনারেল কাসেম সুলায়মানি’র ব্যক্তিত্ব, মনোভাব, পদক্ষেপ ও অভিজ্ঞতার বিষয়ে প্রচারিত এক বিস্তারিত প্রতিবেদনে তাকে বিশ্ব রাজনীতিতে প্রভাবশালী ব্যক্তিত্ব এবং মধ্যপ্রাচ্যে ইরানের তলোয়ার হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছে।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইরান-ইরাক যুদ্ধে ইসলামি বিপ্লবের প্রতি জেনারেল সুলায়মানি বিশ্বস্ততা ও যোগ্যতার প্রমাণ দিয়েছেন। যুদ্ধ চলাকালীন সময়ে যুদ্ধরত কমাণ্ডারদের সাথে ব্যাপক যোগাযোগের মাধ্যমে তিনি বিপ্লবি রক্ষী বাহিনী’র মাঝে বিশ্বস্ত ব্যক্তিত্ব হিসেবে পরিচিত হয়েছেন।
আলজাজিরা আরো জানিয়েছে, যুদ্ধের পরবর্তী সময়েও জেনারেল কাসেম সুলায়মানি নিজের দক্ষতা ও যোগ্যতার প্রমাণ দিয়েছেন। তিনি ইরানের পূর্বাঞ্চলী সীমান্তে –যে অঞ্চলটি সর্বদাই ইরান সরকারের জন্য মাথা ব্যথার কারণ ছিল- নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠা করতে সক্ষম হয়েছেন এবং এ অঞ্চলের জনতাকে পূর্ণ নিরাপত্তা দিতে পেরেছেন।
ঐ প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছে, মধ্যপ্রাচ্যে সৃষ্ট নিরাপত্তা জনিত সমস্যা বৃদ্ধি পাওয়ার ঘটনায় ইসলামি বিপ্লবের সর্বোচ্চ নেতার পক্ষ থেকে তিনি ‘সিপাহে কুদস’-এর কমান্ডার পদে নিয়োগ পান। এক কথায় বলা চলে এর পর থেকে মধ্যপ্রাচ্যের সকল ঘটনাতেই কাসেম সুলায়মানির পায়ের ছাপ পাওয়া যাবে। তিনি হিজবুল্লাহ ও ইসরাইলের মধ্যকার যুদ্ধ, ফিলিস্তিনিদের ও ইসরাইলের মাঝে যুদ্ধ, ইরাক ও আফগানিস্তান যুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন সমস্যায় -এক কথায় যে কোন ঘটনা যাতে ইরান ও মধ্যপ্রাচ্যের স্বার্থ নিহিত ছিল- তিনি ভূমিকা রেখেছেন।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইরানের প্রতিবেশী দেশসমূহে তার ভূমিকা এতটাই গুরুত্ববহ ছিল যে, ইরাকি কর্মকর্তারা এ কথা অকপটে স্বীকার করেছেন, বাগদাদের নিরাপত্তা ও আজকের ইরাকের অস্তিত্বের বিষয়ে তারা কাসেম সুলায়মানির কাছে ঋণী। তারা স্পষ্ট ভাষায় এ কথাকে স্বীকার করেন।
ঐ প্রতিবেদনে, কাসেম সুলায়মানিকে এমন এক ব্যক্তিত্ব হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে, যে কোন সময় যে কোন স্থানে তাকে দেখা যেতে পারে, অথচ কোথাও তার পায়ের ছাপ খুঁজে পাওয়া যায় না। এছাড়া মার্কিন কর্মকর্তারাও এ কথা স্বীকার করেছেন যে, কাসেম সুলায়মানির অগোচরে ইরাকে কোন পদক্ষেপ নেয়া সম্ভব নয়।#


আপনার মন্তব্য প্রেরণ করুন

আপনার ই-মেইল প্রকাশিত হবে না। প্রয়োজনীয় ফিল্ডসমূহ * এর মাধ্যমে চিহ্নিত করা হয়েছে

*

ইসলামের মহান সেনাপতি জে. কাসেম সোলাইমানি ও আবু মাহদি আল-মুহানদিস
We are All Zakzaky
conference-abu-talib
No to deal of the century