ইয়েমেনে সৌদিআরবের আগ্রাসন: শিয়া হুথিদের বিজয়ে শঙ্কিত রিয়াদ

  • News Code : 679698
  • Source : IRIB
Brief

মধ্যপ্রাচ্যের আরো একটি দেশে সৌদি আরবের সরাসরি হস্তক্ষেপ ও সামরিক আগ্রাসনের ঘটনায় সারা বিশ্বে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে।

আবনা : মধ্যপ্রাচ্যের আরো একটি দেশে সৌদি আরবের সরাসরি হস্তক্ষেপ ও সামরিক আগ্রাসনের ঘটনায় সারা বিশ্বে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে। সৌদি আরব এবার ইয়েমেনকে টার্গেট করে যুদ্ধ শুরু করেছে।
খবরে জানা গেছে, সৌদি আরবের বিমানবাহিনী ইয়েমেনের আনসারুল্লাহ’র অবস্থানের ওপর ব্যাপক হামলা চালিয়েছে। ইয়েমেনের জনগণ আন্দোলনের মাধ্যমে স্বৈরসরকারকে উৎখাত করার পর পলাতক প্রেসিডেন্ট আব্দ রাব্বু মানসুর হাদি ইয়েমেনে হস্তক্ষেপ করার জন্য সৌদি আরবের নেতৃত্বাধীন পারস্য উপসাগরীয় সহযোগিতা পরিষদ বা পিজিসিসি’র প্রতি আহবান জানিয়েছেন। মধ্যপ্রাচ্যের রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা ইয়েমেনে বিদেশিদের হস্তক্ষেপের ফলে সেদেশের পরিস্থিতি আরো জটিল হয়ে পড়বে বলে মন্তব্য করার পর সৌদি আরবসহ পাশ্চাত্যের কয়েকটি দেশ ইয়েমেনে হামলা শুরু করলো।
সৌদি আরব ইয়েমেনের জনগণকে দমনের জন্য এমন সময় সামরিক হস্তক্ষেপ শুরু করলো যখন দেশটির জনগণ গণআন্দোলনের মাধ্যমে  দুর্নীতিপরায়ণ স্বৈরসরকারের পতন ঘটিয়েছে। ইয়েমেনের হুথি আন্দোলনকারীরা গণতন্ত্রের জন্য আন্দোলন করে আসছিল। বিপ্লব বিজয়ের পর পরই ইয়েমেনের নেতৃবৃন্দ নির্বাচন দিতে চেয়েছিল যাতে জনগণ সরাসরি তাদের ভবিষ্যৎ নির্ধারণ করতে পারে।
সৌদি আরব একদিকে ইয়েমেনের বিপ্লব নষ্ট করার জন্য সামরিক হামলা শুরু করেছে অন্যদিকে তারা বাহরাইনসহ এ অঞ্চলের অন্যান্য দেশের জনগণের ন্যায়সঙ্গত আন্দোলনও দমনের চেষ্টা করছে। ইয়েমেনের গণআন্দোলন ঠেকানোর জন্য সৌদি আরব সামরিক হস্তক্ষেপসহ সব রকম চেষ্টাই চালিয়েছে। গত কয়েক বছরে ইয়েমেনের ঘটনাবলী এবং স্বৈরসরকারকে হটাতে দেশটির জনগণের অব্যাহত আন্দোলনের ঘটনা সারা বিশ্ব দেখেছে। এ অবস্থায় সেদেশে হস্তক্ষেপের কোনো অধিকারই সৌদি আরবের নেই। এ ধরণের হস্তক্ষেপের ফলে কেবল ইয়েমেনের পরিস্থিতিকেই আরো জটিল করে তোলা হবে যা কিনা বিশ্ববাসীর কাছে নিন্দনীয়।
সৌদি আরব বিভিন্নভাবে ইয়েমেনের গোলযোগের সুযোগ নেয়ার চেষ্টা করে আসছে। ইয়েমেনে বিভিন্ন গোত্র ও সম্প্রদায়ের মানুষের বসবাস এবং সেদেশে শিয়া মুসলিম সম্প্রদায় সংখ্যাগরিষ্ঠ। এ অবস্থায় শিয়া মুসলিম জনগোষ্ঠীর আন্দোলন সফল হলে এ অঞ্চলের ভারসাম্য সৌদি আরবের বিরুদ্ধে চলে যাবে বলে তারা আশঙ্কা করছে। এ কারণে প্রথম থেকেই সৌদি আরব হুথি আন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে।
এ ছাড়া, বর্তমানে ইয়েমেনকে চাপে রাখার জন্য সৌদি আরব সেদেশটি দখল করা কিংবা সীমান্তের বিতর্কিত এলাকাগুলো যতটা সম্ভব দখল করার পদক্ষেপ নিয়েছে। এ ব্যাপারে কিছুদিন আগে সৌদি আরবের একটি টিভি চ্যানেলে প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। এতে ইয়েমেনের কোন্‌  কোন্‌ এলাকা দখল করা হবে তার একটা ম্যাপ দেখানো হয়। সৌদি আরব এর আগে আসির, নাজরান ও জিযান নামে ইয়েমেনের তিনটি প্রদেশ দখল করেছিল এবং সম্প্রতি ওই প্রদেশগুলোকে সৌদি-ভূখণ্ডের অংশ বলে ঘোষণা দিয়েছে।
অবশ্য রিয়াদ কেবল ইয়েমেনের ওই তিনটি প্রদেশ দখল করেই ক্ষান্ত হয়নি একই সঙ্গে সম্প্রতি হাজের নামক আরেকটি এলাকা দখলের পায়তারা করেছিল। ইয়েমেনের বিরুদ্ধে সৌদি আরবের ষড়যন্ত্র কেবল সামরিক হামলার মধ্যেই সীমাবদ্ধ নেই একই সঙ্গে রাজনৈতিক উপায়েও দেশটির ওপর চাপ সৃষ্টির চেষ্টা চালাচ্ছে। এ লক্ষ্যে তারা পিজিসিসি ভুক্ত আরব দেশগুলোকে ইয়েমেনের বিরুদ্ধে দাঁড় করিয়েছে। #


আপনার মন্তব্য প্রেরণ করুন

আপনার ই-মেইল প্রকাশিত হবে না। প্রয়োজনীয় ফিল্ডসমূহ * এর মাধ্যমে চিহ্নিত করা হয়েছে

*

پیام رهبر انقلاب به مسلمانان جهان به مناسبت حج 1441 / 2020
conference-abu-talib
We are All Zakzaky