?>

অযোধ্যায় প্রবেশে ‘মিম’ প্রধান আসাদউদ্দিন ওয়াইসি’র উপর নিষেধাজ্ঞা দাবি সাধুদের

অযোধ্যায় প্রবেশে ‘মিম’ প্রধান আসাদউদ্দিন ওয়াইসি’র উপর নিষেধাজ্ঞা দাবি সাধুদের

ভারতের বিজেপিশাসিত উত্তর প্রদেশে মজলিশ-ই-ইত্তেহাদুল মুসলেমিন (মিম) প্রধান ব্যারিস্টার আসাদউদ্দিন ওয়াইসি এমপিকে অযোধ্যায় প্রবেশের উপরে নিষেধাজ্ঞা জারি করতে হবে বলে সাধু-সন্তরা দাবি জানিয়েছেন। আজ (শনিবার) হিন্দি গণমাধ্যম জি নিউজ ওই তথ্য জানিয়েছে।

আহলে বাইত (আ.) বার্তা সংস্থা (আবনা) : রাজ্যে আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ‘মিম’ দলের পোস্টার বিবাদে কতিপয় সাধু-সন্ত ওয়াইসির বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা জারির দাবি তুলেছেন। রাজ্যটিতে ‘মিম’ দল কমপক্ষে ১০০ আসনে নির্বাচনে লড়বে বলে ঘোষণা করেছে।

আগামী ৭ সেপ্টেম্বর আসাদউদ্দিন ওয়াইসির প্রস্তাবিত অযোধ্যা সফরের আগে তাঁর দলীয় পোস্টার বিতর্ক সৃষ্টি করেছে। সরকারি রেকর্ডে ‘অযোধ্যা’ জেলার নাম উল্লেখ থাকার পরেও মিম-এর পোস্টারে ‘ফৈজাবাদ’ জেলা থাকায় সাধু-সন্ত সমাজে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। 

হনুমানগড়ির পুরোহিত রাজু দাস ওয়াইসির পোস্টার নিয়ে প্রশ্ন তুলে বলেন, কেন তিনি ‘অযোধ্যা’ নাম নিয়ে বিরক্ত। ‘অযোধ্যা’ নামটি সরকারি নথিতে লিপিবদ্ধ আছে, তাহলে কেন তাদের পোস্টারে ‘ফৈজাবাদ’ নাম দেওয়া হল? সন্ত সমাজ ওয়াইসির এই মতাদর্শের নিন্দা জানাচ্ছে। ওয়াইসি ওই পোস্টারটি মুছে ফেলুন অন্যথায় এটি ভাল হবে না।

পুরোহিত রাজু দাস মিম প্রধান ওয়াইসিকে টার্গেট করে বলেন, নির্বাচনের সময় শোষিত, বঞ্চিত সমাজের নামে ওয়াইসি দোকান চালাচ্ছেন। যখন শোষিত ও বঞ্চিত সমাজ নিপীড়িত হয়েছে, তখন ওয়াইসি চিন্তিত ছিলেন না। কিন্তু, এখন যখন নির্বাচন এসেছে, তিনি রাজনৈতিক দোকান চালাতে অযোধ্যায় আসছেন।

তপস্বী ছাউনির মোহন্ত জগদগুরু পরমহংস আচার্য বলেন, মুখ্যমন্ত্রী যোগি আদিত্যনাথ ফৈজাবাদের নাম সরিয়ে ‘অযোধ্যা’ করে দিয়েছেন। এটি সরকারি রেকর্ডে লিপিবদ্ধ আছে, তাই ওয়াইসির পোস্টারে ‘অযোধ্যা’র পরিবর্তে ‘ফৈজাবাদ’ লেখা মুখ্যমন্ত্রী যোগি আদিত্যনাথের অপমান। শুধু তাই নয়, এটি অযোধ্যাবাসীরও অপমান। যেভাবে এ ধরনের পোস্টার ও ব্যানার লাগানো হচ্ছে, তা অবিলম্বে সরিয়ে ফেলুন।    

তিনি আরও বলেন, এটি সংশোধন করতে হবে এবং ‘ফৈজাবাদ’ মুছে ফেলে ‘অযোধ্যা’ লিখতে হবে। যদি তিনি ‘ফৈজাবাদ’ লেখেন তাহলে আসাদউদ্দিন ওয়াইসির অযোধ্যায় প্রবেশ বন্ধ করতে হবে। জেলা প্রশাসনের কাছে দাবি যে, ওয়াইসিকে যেন ভিতরে ঢুকতে না দেওয়া হয়। যদি তা না হয় তাহলে জগদগুরু পরমহংস আচার্য ওয়াইসির সমাবেশের আয়োজন করতে দেবেন না।       

কংগ্রেস নেতা প্রমোদ তিওয়ারি বলেছেন, বিজেপি এবং ওয়াইসির অভ্যন্তরীণ বোঝাপড়া রয়েছে, উভয়েই পাল্টা কাওয়ালি করছে। ওয়াইসি যা-ই বলুন না  কেন, তাতে বিজেপির ফায়দা হয়। ওয়াইসি যদি বিহারে আমাদের ক্ষতি না করতেন তাহলে আমাদের সরকার হতো। 

অন্যদিকে, বিজেপি নেতা নরেশ আগরওয়াল ওয়াইসির অযোধ্যা সফর প্রসঙ্গে বলেন, গণতন্ত্রে প্রত্যেকেরই অধিকার আছে, ওয়াইসি আসুন এবং নির্বাচনে লড়ুন। বিজেপি বিরোধী বিভিন্ন দলের পক্ষ থেকে ওয়াইসির ‘মিম’ দলকে ‘বিজেপি’র বি-টিম’ বলে কটাক্ষ করা হয়। ওয়াইসি অবশ্য ওই অভিযোগ খারিজ করে দিয়েছেন।# 

342/


আপনার মন্তব্য প্রেরণ করুন

আপনার ই-মেইল প্রকাশিত হবে না। প্রয়োজনীয় ফিল্ডসমূহ * এর মাধ্যমে চিহ্নিত করা হয়েছে

*