?>

ইয়েমেনে নিষিদ্ধ অস্ত্রের ব্যবহারে ক্যান্সার আক্রান্ত শিশুদের সংখ্যা বৃদ্ধি (ছবি)

সৌদি জোটের নিষিদ্ধ অস্ত্র ব্যবহারের ফলস্বরূপ ইয়েমেনি শিশুদের ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার একটি ভিডিও প্রচার করেছে ইয়েমেনের আল-মাসিরাহ চ্যানেল।

হলে বাইত (আ.) বার্তা সংস্থা (আবনা): সম্প্রতি ইয়েমেন সরকারের স্বাস্থ্যমন্ত্রী ‘তাহা আল-মুতাওয়াক্কিল’ জানিয়েছেন, ইয়েমেনকে ন্যূনমত চিকিৎসা সুবিধা দিতে ব্যর্থ হয়েছে জাতিসংঘ এবং সৌদি জোটের আগ্রাসনের শুরু থেকে ক্যান্সার চিকিৎসা কেন্দ্রগুলোতে রোগীদের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। সৌদি জোটের আন্তর্জাতিকভাবে নিষিদ্ধ অস্ত্র ব্যবহারের ফলে ক্যান্সার রোগীদের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে বলে জানিয়েছেন আল-মুতাওয়াক্কিল। তিনি বলেন, প্রতি বছর ইয়েমেনের বিভিন্ন প্রদেশ থেকে ৭ হাজার ব্লাড ক্যান্সারের রোগী বিভিন্ন ক্যান্সার নিরাময় কেন্দ্রে শরণাপন্ন হয়। কিন্তু দুঃখজনভাবে ঔষধ স্বল্পতা এবং এর চিকিৎসার কাজে ব্যবহৃত পর্যাপ্ত সরঞ্জাম না থাকায় ঐ রোগীদের অর্ধেক সংখক মৃত্যু বরণ করে। যে সকল অঞ্চলের জনগণ সৌদি বিমান হামলার শিকার হয়েছে বেশীরভাগ ক্ষেত্রে ঐ সব এলাকার জনগণই ক্যান্সারসহ নানান জটিল ও প্রাণঘাতী রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে ইয়েমেনের আল-মাসিরা চ্যানেল ইয়েমেনের উত্তরাঞ্চলীয় প্রদেশ ‘সাআদা’র বেশ কয়েকটি শিশুর ভিডিও প্রকাশ করেছে যাদের শরীরের বিভিন্ন স্থানে ছোট ছোট টিউমার দেখা দিয়েছে যেগুলো ক্যান্সারে পরিণত হয়েছে।

ঐ প্রতিবেদনের ভিত্তিতে বর্তমানে ৬৫ হাজার ইয়েমেনি ক্যান্সারে আক্রান্ত; যাদের মাঝে নারী ও শিশুরাও রয়েছে, সানআ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর বন্ধ থাকায় তাদের সকলের জীবন সংকটাপূর্ণ।

ইয়েমেনের জাতীয় ক্যান্সার ইন্সটিটিউটের শিশু বিভাগের প্রধান ‘হামুদ হুদাইশ’ও জানিয়েছে, ক্যান্সার রোগী শিশুদের সংখ্যা ইয়েমেনে বৃদ্ধি পেয়েছে এবং তিনি এর জন্য জাতিসংঘকেই দায়ী করেছেন।

এদিকে, ইয়েমেন আগ্রাসন ও দেশটির বিরুদ্ধে চলমান অবরোধের ফলে অনুর্ধ্ব ৫ বছরের শিশুদের পুষ্টিহীনতা বর্তমানে ৪৭ ভাগে পৌঁছেছে এবং অনুর্ধ্ব ৫ বছরের ৫৫ লাখ শিশুর মধ্যে ২৬ লাখ শিশুই বর্তমানে পুষ্ঠিহীনতায় ভুগছে।

প্রসঙ্গত, জাতিসংঘের মানবাধিকার সংস্থার প্রতিবেদনের ভিত্তিতে, ২০১৫ সালের ২৬শে মার্চ থেকে শুরু হওয়া সৌদি নেতৃত্বাধীন জোটের আগ্রাসনে ইয়েমেনের কমপক্ষে ১৭ হাজার বেসামরিক নাগরিক নিহত এবং ২৬ হাজারেরও বেশী আহত হয়েছে।#176


সম্পর্কিত প্রবন্ধসমূহ

আপনার মন্তব্য প্রেরণ করুন

আপনার ই-মেইল প্রকাশিত হবে না। প্রয়োজনীয় ফিল্ডসমূহ * এর মাধ্যমে চিহ্নিত করা হয়েছে

*