?>

কয়েকটি দেশের স্বেচ্ছাচারিতা বিশ্বব্যাপী মানবিক সংকটের জন্য দায়ী: ইরান

কয়েকটি দেশের স্বেচ্ছাচারিতা বিশ্বব্যাপী মানবিক সংকটের জন্য দায়ী: ইরান

জাতিসংঘে নিযুক্ত ইরানের স্থায়ী প্রতিনিধি মজিদ তাখতে রাভানচি বলেছেন, যেসব সরকার নিষেধাজ্ঞাকে রাজনৈতিক হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করে তাদের আমরা ঘৃণা করি। তিনি কয়েকটি দেশের বলদর্পী, বিদ্বেষী ও স্বেচ্ছাচারী আচরণকে বিশ্বব্যাপী মানবিক সংকট রোধ এবং ত্রাণ সহায়তা পৌঁছে দেয়ার ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক প্রচেষ্টার পথে সবচেয়ে বড় বাধা উল্লেখ করেছেন।

আহলে বাইত (আ.) বার্তা সংস্থা (আবনা): ইরান সবসময়ই পাশ্চাত্যের কয়েকটি দেশের পক্ষ থেকে আরোপিত একতরফা নিষেধাজ্ঞা এবং মার্কিন নেতৃত্বে পাশ্চাত্যের বিদ্বেষী আচরণের নিন্দা জানিয়ে আসছে। পাশ্চাত্য সবসময়ই নিষেধাজ্ঞাকে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করে আসছে। সর্বশেষ ইউক্রেন যুদ্ধের অজুহাতে পাশ্চাত্যের দেশগুলো রাশিয়ার বিরুদ্ধে নজিরবিহীন নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। এ নিষেধাজ্ঞা আরোপের ফলে শুধু যে রাশিয়া ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে তাই নয় একই সাথে বিশ্বের বহু দেশের জনগণ বিশেষ করে পশ্চিম এশিয়া ও আফ্রিকা অঞ্চলের জনগণ তীব্র খাদ্য সংকটে পড়েছে এবং বিশ্বের অর্থনীতির বিরাট ক্ষতি হচ্ছে।

রাশিয়ার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপে নেতৃত্ব দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। শুধু রাশিয়া নয় অন্যান্য দেশের ওপরও নিষেধাজ্ঞা আরোপে আমেরিকা সবচেয়ে বড় ভূমিকা পালন করছে। এ ক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্র অতীতের সকল সীমা ছাড়িয়ে গেছে। ওয়াশিংটনের ইউরোপীয় মিত্ররা বিশেষ করে ব্রিটেন এ ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছে। মার্কিন নীতির বিরোধিতা কিংবা কথিত হুমকির অজুহাতে এসব নিষেধাজ্ঞা দেয়া হচ্ছে। ওয়াশিংটন এমনকি বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাসের প্রকোপের সময়ও শত্রু দেশের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দিতে ছাড়েনি বরং নিষেধাজ্ঞার পরিধি তারা আরো বাড়িয়েছে। ফলে অর্থনৈতিক ও স্বাস্থ্যখাতে এসব দেশ মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডেনাল্ড ট্রাম্পের মতো বর্তমান বাইডেন প্রশাসনও শত্রু দেশগুলোর বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপের নীতি অব্যাহত রেখেছে। যুক্তরাষ্ট্র সরকার বহু বছর ধরে ইরানের বিরুদ্ধে একের পর এক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা ছাড়াও চীন, রাশিয়া, ভেনিজুয়েলা, কিউবা, সিরিয়া ও উত্তর কোরিয়ার মতো দেশগুলোর বিরুদ্ধেও সর্বোচ্চ চাপ সৃষ্টির জন্য একতরফা কঠোর নিষেধাজ্ঞা দিয়ে রেখেছে। এ কারণে জাতিসংঘে নিযুক্ত ইরানের রাষ্ট্রদূত নিষেধাজ্ঞাকে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করার মার্কিন নীতির তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন।

প্রকৃতপক্ষে, ইরান এমনিতেই ভূমিকম্প, খরা, বালু বা ধুলা ঝড়, বন্যা প্রভৃতি প্রাকৃতিক দুর্যোগের দেশ। এ অবস্থায় ইরানের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা ইরানের সংকটকে আরো বাড়িয়ে তুলেছে। মার্কিন সরকার রাজনৈতিক, বাণিজ্য, নিরাপত্তা কিংবা মানবাধিকার ইস্যুতে শত্রু দেশের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দিলেও এসবের মাধ্যমে তারা আসলে নিজেদের স্বার্থ ও রাজনৈতিক উচ্চাকাঙ্ক্ষা হাসিলের চেষ্টা করে। জাতিসংঘও বহুবার করোনা পরিস্থিতিতে বিভিন্ন দেশের বিরুদ্ধে মার্কিন নিষেধাজ্ঞার নিন্দা জানিয়েছে। #         

342/


আপনার মন্তব্য প্রেরণ করুন

আপনার ই-মেইল প্রকাশিত হবে না। প্রয়োজনীয় ফিল্ডসমূহ * এর মাধ্যমে চিহ্নিত করা হয়েছে

*