?>

তালেবানের সরকার অংশগ্রহণমূলক ও প্রতিনিধিত্বমূলক নয়

তালেবানের সরকার অংশগ্রহণমূলক ও প্রতিনিধিত্বমূলক নয়

ইউরোপীয় ইউনিয়ন বলেছে, আফগানিস্তানে তালেবানের নেতৃত্বে যে সরকার গঠিত হয়েছে তা অংশগ্রহণমূলক ও প্রতিনিধিত্বমূলক নয়। ইউরোপীয় জোট বলছে, বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠীর সমন্বয়ে সরকার গঠনের ব্যাপারে তালেবান যে অঙ্গীকার ব্যক্ত করেছিল তা পূরণে তারা ব্যর্থ হয়েছে।

আহলে বাইত (আ.) বার্তা সংস্থা (আবনা) : গতকাল (বুধবার) ইউরোপীয় ইউনিয়নের এক মুখপাত্র এসব কথা বলেছেন। তিনি বলেন, “সরকারের মন্ত্রী-উপমন্ত্রীদের যে নামের তালিকা ঘোষণা করা হয়েছে তা প্রাথমিকভাবে বিশ্লেষণ করে দেখা যাচ্ছে যে, বিভিন্ন নৃগোষ্ঠী ও ধর্মীয় সম্প্রদায়ের লোকজনের সমন্বয়ে অংশগ্রহণমূলক ও প্রতিনিধিত্বমূলক সরকার গঠনের যে আশা আমরা করেছিলাম এবং গত কয়েক সপ্তাহ ধরে তালেবান যে প্রতিশ্রুতি দিয়ে আসছিল তা পূরণ হয় নি।”

তালেবান সরকারের সঙ্গে সম্পর্ক প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে ২৭ জাতির ইউরোপীয় জোট পাঁচটি শর্ত দিয়েছে যার মধ্যে অন্যতম হলো- অংশগ্রহণমূলক ও প্রতিনিধিত্বমূলক অন্তর্বর্তী সরকার গঠন। আফগানিস্তান থেকে আকস্মিকভাবে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের পর পুরো দেশ তালেবানের নিয়ন্ত্রণে চলে যায়। বিষয়টিকে পশ্চিমা দেশগুলো ভালো চোখে দেখছে না।

এদিকে, মঙ্গলবার আফগানিস্তানে তত্ত্বাবধায়ক সরকার গঠনের পর জার্মানি ও জাপান তালেবানের অন্তর্বর্তী সরকার নিয়ে সতর্ক প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে। জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেইকো মাস বলেছেন, বিভিন্ন নৃ-গোষ্ঠীর অংশগ্রহণ ছাড়া আফগানিস্তানে যে সরকার গঠিত হয়েছে তাতে আশাবাদী হওয়ার কোনো কারণ নেই। তারপরও জার্মানি তালেবানের সঙ্গে আলোচনা রাখতে চায় এই জন্য, যাতে খাদ্য ও অর্থ সংকটে থাকা আফগান নাগরিকদের মধ্যে যারা দেশ ত্যাগ করতে চায় তাদেরকে নিরাপদে বের করে আনা যায়।

জাপান বলেছেন, তারা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছে এবং আমেরিকা ও অন্য দেশগুলোর সঙ্গে তারা সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে। তবে তালেবানের নেতৃত্বাধীন সরকারকে স্বাগত জানিয়েছে চীন। দেশটি বলেছে, আফগানিস্তানে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনার জন্য সরকার গঠন ছিল খুবই জরুরি পদক্ষেপ।#

342/


আপনার মন্তব্য প্রেরণ করুন

আপনার ই-মেইল প্রকাশিত হবে না। প্রয়োজনীয় ফিল্ডসমূহ * এর মাধ্যমে চিহ্নিত করা হয়েছে

*