?>

পাঞ্জাবে সেনা ক্যান্টনমেন্টের গেটের সামনে গ্রেনেড বিস্ফোরণ, ‘হাই অ্যালার্ট’ জারি

পাঞ্জাবে সেনা ক্যান্টনমেন্টের গেটের সামনে গ্রেনেড বিস্ফোরণ, ‘হাই অ্যালার্ট’ জারি

ভারতের পাঞ্জাবের পাঠানকোট জেলায় সেনা ক্যাম্পে ত্রিবেণী গেটের সামনে অজ্ঞাত সন্ত্রাসীরা গ্রেনেড নিক্ষেপ করেছে।

আহলে বাইত (আ.) বার্তা সংস্থা (আবনা) : ওই হামলায় জানমালের কোনো ক্ষতি না হলেও পাঠানকোটে ‘হাই অ্যালার্ট’ জারি করা হয়েছে। সর্বত্র তল্লাশি চলছে। একইসঙ্গে গোটা পাঞ্জাবে সতর্কতা জারি করা হয়েছে। অমৃতসর, জলন্ধর, ভাতিন্ডা, গুরুদাসপুর এবং অন্যান্য সমস্ত শহরে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। বিভিন্ন চেকপয়েন্টে পুলিশ কর্মকর্তাদের মোতায়েন করা হয়েছে।   

এদিকে, পাঠানকোটে গ্রেনেড হামলার আঁচ পৌঁছেছে জম্মু পর্যন্ত। জম্মুতে নিরাপত্তা ব্যবস্থা বৃদ্ধি করা হয়েছে। জম্মু-পাঠানকোট মহাসড়কে অনেক জায়গা অবরুদ্ধ করে তল্লাশি চালানো হচ্ছে। মহাসড়ক দিয়ে যাতায়াত করা সমস্ত গাড়িকে তল্লাশি করা হচ্ছে।       

পাঞ্জাবের উপ-মুখ্যমন্ত্রী সুখজিন্দর সিং রানধাওয়া সোমবার বলেন, তিনি রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি এবং নিরাপত্তা পর্যালোচনা করতে মঙ্গলবার অমৃতসর সীমান্ত অঞ্চল এবং জলন্ধর জোনের সিনিয়র কর্মকর্তাদের একটি বৈঠক ডেকেছেন।

পাঠানকোটের সিনিয়র পুলিশ সুপার (এসএসপি) সুরেন্দ্র লাম্বা বলেছেন, বিষয়টি নিয়ে তদন্ত চলছে, সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখা হচ্ছে। পাঠানকোটের সব চেকপোস্টে সতর্কতা জারি করা হয়েছে। বিস্ফোরণের পরে গ্রেনেডের কিছু অংশ উদ্ধার করা হয়েছে।        

গণমাধ্যমে প্রকাশ, এসএসপি সুরিন্দর লাম্বা, সান্ত্রির থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে বলেন,  রাতে ক্যাম্পের সামনে দিয়ে একটি মোটরবাইক চলে যায়। এতে থাকা লোকজন গেটের দিকে একটি গ্রেনেড নিক্ষেপ করে, যা বিস্ফোরিত হয়। তিনি বিষয়টি কর্তৃপক্ষকে জানান। এলাকাটি অবিলম্বে ‘সিল’ করে দেওয়া হয় এবং তল্লাশি চালানো হয়। গেটে লাগানো সিসিটিভিও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।     

পাঞ্জাবের পাঠানকোট জেলা ভারতীয় সামরিক বাহিনীর অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ঘাঁটি। এখানে ভারতীয় বিমান বাহিনীর স্টেশন, সেনাবাহিনীর গোলাবারুদ ডিপো এবং দুটি সাঁজোয়া ব্রিগেড এবং সাঁজোয়া ইউনিট রয়েছে। 

২০১৬ সালের ২ জানুয়ারী পাঠানকোটে বিমানবাহিনীর বিমানঘাঁটিতে সন্ত্রাসী হামলা হয়েছিল। ভারতীয় সেনাবাহিনীর ইউনিফর্ম পরে আসা সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়েছিল। এতে ৭ জওয়ান নিহত হয়েছিল।#

342/


আপনার মন্তব্য প্রেরণ করুন

আপনার ই-মেইল প্রকাশিত হবে না। প্রয়োজনীয় ফিল্ডসমূহ * এর মাধ্যমে চিহ্নিত করা হয়েছে

*