?>

বিজেপি সরকার মুসলিমদের দ্বিতীয় শ্রেণির নাগরিক করতে চাচ্ছে: ওয়াইসি

বিজেপি সরকার মুসলিমদের দ্বিতীয় শ্রেণির নাগরিক করতে চাচ্ছে: ওয়াইসি

ভারতের মজলিশ-ই-ইত্তেহাদুল-মুসলেমিন (মিম) প্রধান ব্যারিস্টার আসাদউদ্দিন ওয়াইসি এমপি বলেছেন, বিজেপি সরকার মুসলিমদের দ্বিতীয় শ্রেণির নাগরিক করতে চাচ্ছে। ভারতের মুসলিমরা তা বুঝতে পারছে না।

(ABNA24.com) ভারতের মজলিশ-ই-ইত্তেহাদুল-মুসলেমিন (মিম) প্রধান ব্যারিস্টার আসাদউদ্দিন ওয়াইসি এমপি বলেছেন, বিজেপি সরকার মুসলিমদের দ্বিতীয় শ্রেণির নাগরিক করতে চাচ্ছে। ভারতের মুসলিমরা তা বুঝতে পারছে না।

ওয়াইসি বলেন, ‘ভারতের মুসলিমদের বুঝতে হবে যে আমরা দীর্ঘকাল ধরে ধর্মনিরপেক্ষতার ‘কুলি’ হতে পারি না। তাহলে আমাদের ভোট কেন ধর্মনিরপেক্ষ দলগুলোর কাছে যাওয়া উচিত। মুসলিমদের উচিত নিজ সম্প্রদায়ের মধ্যে রাজনৈতিক নেতৃত্বের সন্ধান করা। এটাই একমাত্র উপায় যার মধ্য দিয়ে এটা সুনিশ্চিত হবে যে আমাদের সাংবিধানিক অধিকার দেয়া হয়েছে।’

মুসলিমদের উদ্দেশে মিম প্রধান বলেন, ‘দয়া করে আপনারা নিজেদের মধ্যে নেতৃত্ব তৈরি করুন। আপনারা নিজেরাই নিজেদের পরিবর্তন করুন। কারণ আসমান থেকে জান্নাতে নিয়ে যাওয়ার জন্য কেউ আসবে না।’

গণতন্ত্র কেবল ভোট করার জন্য নয়, নেতৃত্ব করার জন্যও প্রস্তুত বলে ওয়াইসি মন্তব্য করেন।

এ প্রসঙ্গে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের সারা বাংলা সংখ্যালঘু যুব ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মাদ কামরুজ্জামান আজ (সোমবার) রেডিও তেহরানকে বলেন, ‘ভারতের বিখ্যাত সংসদ সদস্য জনাব আসাদউদ্দিন ওয়াইসি সাহেব অত্যন্ত প্রাসঙ্গিক কথা বলেছেন। আজকের দিনে ভারতের স্বাধীনতার ৭৩ বছর পরেও দেশের মানুষ নিরাপদে সর্বত্র ঘুরে বেড়াতে পারছেন না। মুসলিমরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন! ‘ইনসাফ’ থেকে তাঁদেরকে বঞ্চিত করা হচ্ছে।

আর মুসলিমদের কেবল বলা হচ্ছে যে, দেশের ধর্মনিরপেক্ষতার ঐতিহ্যকে তোমরা এগিয়ে নিয়ে যাও। মোদি সরকার এভাবে মুসলিম সম্প্রদায়কে বিপথে চালিত করে তারা এদেশের মুসলিমদের দ্বিতীয় শ্রেণির নাগরিক বানাতে চাচ্ছে। এবং এক্ষেত্রে অন্যান্য ধর্মনিরপেক্ষ রাজনৈতিক দলের যে বলিষ্ঠ ভূমিকা প্রয়োজন ছিল তা এখনও পর্যন্ত লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। সেজন্য এখন আমাদের প্রয়োজন মুসলিমদের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন। এবং সেই আন্দোলনে মুসলিমদের নেতৃত্ব গ্রহণ করতে হবে।

কামরুজ্জামান আরও বলেন, 'মুসলিম শিক্ষিত যুব সমাজ এবং যারা সুধীজন তাঁদেরকে এগিয়ে এসে সমাজ ও দেশের হাল ধরতে হবে। তা নাহলে দেশের এই সঙ্কটকালীন সময়ে দেশের ধর্মনিরপেক্ষতা যেমন বিলীন হবে তার পাশাপাশি দেশের সম্প্রীতির ঐতিহ্য, জাতীয় সংহতি ইত্যাদি সবকিছুই ধ্বংস হবে। কেননা আজকে মোদির হাতে দেশের ক্ষমতা থাকায় মানুষ একের পর এক অত্যন্ত বিপজ্জনক অবস্থার দিকে যাচ্ছে। গোটা দেশ বিপজ্জনক অবস্থার দিকে যাচ্ছে।’

'দেশের অর্থনৈতিক মেরুদণ্ড সম্পূর্ণভাবে ভেঙে পড়ছে। সেজন্য এসময় মুসলিম সমাজকে এগিয়ে আসতে হবে যারা নিষ্ঠার সঙ্গে এই দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবেন' বলেও সারা বাংলা সংখ্যালঘু যুব ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মাদ কামরুজ্জামান মন্তব্য করেন।    


/129


আপনার মন্তব্য প্রেরণ করুন

আপনার ই-মেইল প্রকাশিত হবে না। প্রয়োজনীয় ফিল্ডসমূহ * এর মাধ্যমে চিহ্নিত করা হয়েছে

*