$icon = $this->mediaurl($this->icon['mediaID']); $thumb = $this->mediaurl($this->icon['mediaID'],350,350); ?>

হিজাবকে কখনই ত্যাগ করবো না: কিমিয়া আলীজাদেহ

  • News Code : 775076
  • Source : ABNA
Brief

প্রথম ইরানি নারী হিসেবে অলিম্পিকে মেডেল বিজয়ী কিমিয়া আলীজাদেহ বলেছেন: হয়তবা বাধ্য হলে কোনদিন স্পোর্টসকে ত্যাগ করতে পারি কিন্তু হিজাবকে কখনই ত্যাগ করবো না।

হলে বাইত (আ.) বার্তা সংস্থা –আবনা-: ইরানের কারাজ শহরে বার্তা সংস্থা ফারসকে দেয়া এক সাক্ষাতকারে কিমিয়া আলীজাদেহ বলেন: একজন ইরানি মুসলিম নারী হিসেবে অলিম্পিকে ব্রোঞ্জ পদক লাভ করে ইসলামি বিপ্লবের সর্বোচ্চ নেতা, রাষ্ট্রপতি, দেশের কর্মকর্তাগণ এবং ইরানের কোটি কোটি জনতা বিশেষভাবে আলবোর্জ প্রদেশের জনগণকে আনন্দিত করতে পেরে আমি অত্যন্ত গর্বিত।

তিনি বলেন: স্বর্ণ পদকের জন্য আমি সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি কিন্তু বেশ কয়েকটি কারণে সেটা অর্জনে আমি ব্যর্থ হয়েছি। এর অন্যতম কারণ হচ্ছে আমি প্রথমবারের মত এমন বড় কোন আসরে অংশগ্রহণ করেছি।

হিজাবধারী এ নারী বলেন: অলিম্পিকে যাওয়ার আগে জনগণকে –বিশেষভাবে আমার প্রদেশ ও কারাজ জেলার জনতাকে- আমি কথা দিয়েছিলাম যে, অলিম্পিকে সর্বোচ্চ চেষ্টা করবো। যারা প্রতিযোগিতা দেখেছেন, তারাও এ বিষয়ের সাক্ষী যে, আমি চেষ্টার ত্রুটি করিনি।

আলীজাদেহ’র সংযোজন: আমি স্বর্ণ জয় করে ইরানে ফিরতে চেয়েছিলাম। আমি সমগ্র ইরানি জাতিকে কথা দিতে চাই যে, আমি আমার চেষ্টা বাড়িয়ে দেব এবং আগামি প্রতিযোগিতাগুলোতে ইরানের জনগণের মুখে হাসি ফোঁটাবো।

তার হিজাব পরার বিষয়ে অন্যান্য দেশের ক্রীড়াবিদরা কি ধরনের প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছেন –এ প্রসঙ্গে করা প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন: বিশ্বাস করুন, তাদের প্রতিক্রিয়া আমার কাছে গুরুত্বহীন ছিল। কারণ আমি হিজাবকে মহান আল্লাহর নির্দেশ, অন্তরের ঈমান এবং পারিবারিক শিক্ষার ভিত্তিতে গ্রহণ করেছি। কোন অবস্থাতেই, কোন মূল্যেই আমি হিজাবকে ত্যাগ করবো না।

কিমিয়া আলীজাদেহ বলেন: হিজাব ইরানি মুসলিম নারীদের সাথে মিশে একাকার হয়ে গেছে। হিজাব আমাদের কাছে পবিত্রতা ও সতিত্বের সমান অর্থ রাখে। মুসলিম নারীরা কোন মূল্যেই হিজাব ত্যাগ করতে সম্মত হয় না।

যদি বিশ্ব তাউকোনডু ফেডারেশন তাদের রুল পরিবর্তন করে হিজাবধারী নারী ক্রীড়াবিদদেরকে হিজাব পরে রিংয়ে আসার উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে তবে আপনি কি করবেন –এ শীর্ষক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন: সৌভাগ্যজনকভাবে বিশ্বের নারীদের চিন্তা-চেতনায় পরিবর্তন এসেছে। এই প্রতিযোগিতাতেও (রিও অলিম্পিক) আমি দেখেছি কিছু কিছু ইভেন্টে মুসলিম নারীরা পূর্ণ হিজাব নিয়েই অংশগ্রহণ করেছেন।

রিও অলিম্পিকের ব্রোঞ্জ পদকধারী নারী এ ক্রীড়াবিদ বলেন: অতএব, কোন শক্তিই কোটি কোটি মুসলিম নারীকে তাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত করতে পারবে না।

আলীজাদেহ বলেন: যদি কোনদিন আমাকে হিজাবের সাথে প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের সুযোগ না দেয়া হয় তবে স্পোর্টসকে ছেড়ে দেব, কিন্তু হিজাবকে ত্যাগ করবো না।#


আপনার মন্তব্য প্রেরণ করুন

আপনার ই-মেইল প্রকাশিত হবে না। প্রয়োজনীয় ফিল্ডসমূহ * এর মাধ্যমে চিহ্নিত করা হয়েছে

*