খুন হওয়ার ভয়ে চুরির টাকা হস্তান্তর করেন দেগুইতো

  • News Code : 741751
  • Source : banglamail24
Brief

বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ আ্যকাউন্ট থেকে চুরি যাওয়া অর্থ দ্রুততার সঙ্গে হস্তান্তরে বাধ্য হয়েছেন ফিলিপাইনের রিজাল ব্যাংকের মাকাতি সিটির জুপিটার স্ট্রিট শাখা ম্যানেজার মাইয়া সান্তোস দেগুইতো।

আবনা ডেস্ক : বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ আ্যকাউন্ট থেকে চুরি যাওয়া অর্থ দ্রুততার সঙ্গে হস্তান্তরে বাধ্য হয়েছেন ফিলিপাইনের রিজাল ব্যাংকের মাকাতি সিটির জুপিটার স্ট্রিট শাখা ম্যানেজার মাইয়া সান্তোস দেগুইতো। নিজে অথবা পরিবারের লোকজন খুন হওয়ার ভয়েই তিনি সব জেনেও টাকা হস্তান্তর করেন বলে বৃহস্পতিবার সিনেট কমিটির রুদ্ধদ্বার শুনানিতে জানিয়েছেন ওই ব্যাংকের এক কর্মকর্তা।
এর আগে সিনেট কমিটির কয়েকদফা উন্মুক্ত শুনানিতে দেগুইতো বলেছেন, রুদ্ধদ্বার বৈঠকে অর্থ জালিয়াতির এ ঘটনার সব খুলে বলবেন। এ নিয়ে দেশটির ব্যাংক সিক্রেসি আইনের বিধিনিষেধের কথা উল্লেখ করেন এই ব্যাংক কর্মকর্তা। সিনেট কমিটি বিরোধী দলের সদস্য জুয়ান এনরিলির অনুরোধে বৃহস্পতিবার রুদ্ধদ্বার এ বৈঠক ডাকা হয়।
পরে বিরোধী দলের ওই সদস্য বলেন, অভিযুক্ত ওই ম্যানেজার জীবনের ঝুঁকি থাকায় হয়তোবা উন্মুক্ত শুনানিতে জালিয়াতির বিষয়টি বলতে চাননি। শুনানিতে ব্যাংকটির অন্য কর্মকর্তারাও বক্তব্য দেন।
যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক অব নিউইয়র্কে গচ্ছিত বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ অ্যাকাউন্ট থেকে ১০১ মিলিয়ন ডলার অর্থ লোপাট হয়। বাংলাদেশ ব্যাংকের গোপন সুইফট কোড ব্যবহার করে বিপুল অংকের এ লোপাট হয় গত ৫ ফেব্রুয়ারি। তবে লোপাটের এ ঘটনা তদন্তে নিয়োজিত বাংলাদেশের কর্মকর্তাদের একাংশের মতে, এ লোপাট হয়েছে ২৪ জানুয়ারি।
লোপাটের অর্থের ৮১ মিলিয়ন ডলার পাঠানো ফিলিপাইনের রিজাল ব্যাংকের মাকাতি সিটির জুপিটার স্ট্রিট শাখার চার অ্যাকাউন্টে। এ টাকা দ্রুততার সঙ্গে তুলে নিতে সহায়তা করেন ওই শাখার ম্যানেজার দেগুইতো।
চুরি যাওয়া বাকি ২০ মিলিয়ন ডলার পাঠানো হয় শ্রীলংকার একটি ব্যাংকে। প্রাপকের নামের বানানে ভুল থাকায় ওই অর্থ আটকে দেন সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের কর্মকর্তারা।
বৃহস্পতিবারের সিনেট কমিটির শুনানিতে রিজাল ব্যাংকের কাস্টমার সার্ভিসেস বিভাগের রমুলদো আগার্দোও বক্তব্য রাখেন। তিনি বলেন, ‘ঘটনার সময় দেগুইতো বলেছেন, হয় আমাকে এটা করতেই হবে, নইলে আমি অথবা আমার পরিবারের সদস্যদের মরতে হবে।’
শুনানিতে আগার্দো সিনেট কমিটিতে বলেন, ‘৯ ফেব্রুয়ারি সকালে দেগুইতো আমার এবং সহকারী ব্রাঞ্চ ম্যানেজার অ্যাঞ্জেলা তোরেসের উপস্থিতিতে এ কথা বলেন।’
অবশ্য রুদ্ধদ্বার বৈঠকে দেগুইতো সহকর্মীর এ ধরনের দাবি অস্বীকার করেছেন।


আপনার মন্তব্য প্রেরণ করুন

আপনার ই-মেইল প্রকাশিত হবে না। প্রয়োজনীয় ফিল্ডসমূহ * এর মাধ্যমে চিহ্নিত করা হয়েছে

*

پیام رهبر انقلاب به مسلمانان جهان به مناسبت حج 1440 / 2019
conference-abu-talib
We are All Zakzaky