কলেজে ভর্তিতে ড্রাগ টেস্ট বাধ্যতামূলক করছে ফিলিপাইনের সরকার

  • News Code : 776421
  • Source : jjdin
Brief

ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট রদ্রিগো দুয়ার্তেফিলিপাইনকে মাদকমুক্ত করতে এবার কলেজে ভর্তিতে বাধ্যতামূলক ড্রাগ টেস্টের প্রবর্তন করতে যাচ্ছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট রদ্রিগো দুয়ার্তে।

আবনা ডেস্ক: ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট রদ্রিগো দুয়ার্তেফিলিপাইনকে মাদকমুক্ত করতে এবার কলেজে ভর্তিতে বাধ্যতামূলক ড্রাগ টেস্টের প্রবর্তন করতে যাচ্ছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট রদ্রিগো দুয়ার্তে। ক্ষমতায় আসার পরপরই মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধের পাশাপাশি ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে মাদকমুক্ত করার ঘোষণা দেন দুয়ার্তে। তারই অংশ হিসেবে মাদক সেবন বন্ধে এই অভিনব উদ্যোগ নিয়েছে ফিলিপাইনের সরকার। দেশটির এক শিক্ষা কর্মকর্তা জানিয়েছেন, আগামী বছর থেকে এটি কার্যকর হতে যাচ্ছে। এদিকে ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট হিসেবে দুয়ার্তের ক্ষমতা গ্রহণের এ পর্যন্ত দেশটিতে মাদকবিরোধী বিভিন্ন অভিযানের সময় ২ হাজারের বেশি নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির পুলিশ প্রধান। সংবাদসূত্র : বিবিসি, রয়টার্স, নিউইয়র্ক টাইমস
কলেজে ভর্তিতে ড্রাগ টেস্ট প্রসঙ্গে শুক্রবার দেশটির উচ্চশিক্ষা কমিশনের নির্বাহী পরিচালক জুলিটো ভিট্রিওলা জানান, কলেজে ভর্তি হতে ইচ্ছুক সব শিক্ষার্থীদের ড্রাগ টেস্ট নিতে যাচ্ছে সরকার। তিনি বলেন, শিক্ষাঙ্গনকে মাদকমুক্ত করতে প্রেসিডেন্ট দুয়ার্তের দেয়া অঙ্গীকার বাস্তবায়নে এই পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে। তিনি আরো বলেন, 'আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে, শিক্ষার্থীরা যেন কোনোভাবেই মাদক সেবন না করে। তারা যদি নিজেদের অধ্যয়ন অব্যাহত রাখে, তা জাতির জন্য কল্যাণকর হবে।' এর আগে দেশটিতে বাধ্যতামূলক না হলেও, নিয়মিত বিরতিতে বিভিন্ন শিক্ষাঙ্গনের নিজস্ব উদ্যোগে শিক্ষার্থীদের ড্রাগ টেস্ট করা হতো।
ভিট্রিওলা জানান, ড্রাগ টেস্টে যারা ধরা পড়বে, তাদের কলেজে ভর্তি করা হবে না। এমনকি তাদের পুনর্বাসন প্রক্রিয়ার মধ্যদিয়েও যেতে হবে বলে জানান তিনি।
'এসটিআই এডুকেশন সিস্টেমস হোল্ডিংস ইনকরপোরেশনের সভাপতি মনিকো জ্যাকব বলেন, 'আমাদের সমাজের মাদকের ভয়াবহতা একটি বাস্তব ভীতি। ফলে ড্রাগ টেস্টকে বাধ্যতামূলক করে আমরা শিক্ষার্থীদের মাদকের ব্যাপারে নিরুৎসাহিত করতে পারি।'
মাদকবিরোধী অভিযানে নিহত দুই হাজারের বেশি
এদিকে প্রেসিডেন্ট হিসেবে দুয়ার্তের ক্ষমতা গ্রহণের ১০০ দিনের মধ্যেই মাদকের বিরুদ্ধে সরকারি অভিযানে প্রায় ২ হাজার লোক নিহত হয়েছে জানিয়ে সরকারের তীব্র সমালোচনা করেছে বিভিন্ন মানবাধিকার সংস্থা। তাদের মতে, ফিলিপাইনের রাজনীতিবিদরা আইনের শাসনের লঙ্ঘন করেছে।
বার্তা সংস্থাগুলো জানায়, প্রেসিডেন্ট দুয়ার্তে মাদকদ্রব্য ও অপরাধীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণার পর থেকে ফিলিপাইনে তালিকা তৈরি সন্দেহভাজন মাদকদ্রব্য গ্রহণ ও পাচারকারীদের হত্যা করা হচ্ছে। মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধের অংশ হিসেবে তাদের হত্যা করা হয়। তবে এই ঘটনায় ইতোমধ্যে জাতিসংঘ ও আমেরিকা উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।
ফিলিপাইনের পুলিশ প্রধান রোনাল্ড ডেলা রোসা সিনেট শুনানিতে বলেন, মাদকবিরোধী বিভিন্ন অভিযানের সময় ৭৫০ জন নিহত হবার ঘটনায় পুলিশের সম্পৃক্ততা ছিল। এছাড়া আরো ১ হাজার ১০০ জন নিহত হবার ঘটনায় এখনো তদন্ত চলছে।
পুলিশ প্রধান রোসার মতে, ৩১ আগস্ট পর্যন্ত দেশটিতে মাদকবিরোধী বিভিন্ন অভিযানের সময় ২ হাজার ৪৪৬ জন নিহত হয়েছে। এদের মধ্যে সরকারি অভিযানে ৯২৯ জন নিহত হয়। আর ১ হাজার ৫০৭ জন নিহত হয়েছে বিভিন্ন হামলায়। এছাড়া পুলিশের অন্তত ১০ কর্মকর্তা মাদকবিরোধী বিভিন্ন অভিযানে নিহত হয়েছে। প্রসঙ্গত, ফিলিপাইন কর্তৃপক্ষ এ পর্যন্ত মাদকসংক্রান্ত ৬২৭টি মামলা নথিভুক্ত করেছে।
প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার আগে দুয়ার্তে বলেছিলেন, 'আমি নির্বাচিত হলে মাদক সমস্যার সমাধান করব। আমি কোনো মানবাধিকার কমিশনকে তোয়াক্কা করি না।' পরবর্তীতে ক্ষমতায় আসার পর তিনি জানান, ফিলিপাইনে ৩ মিলিয়ন মাদক অপরাধী রয়েছে। আর প্রায় ৬ লাখ মাদক অপরাধীকে ফিলিপাইন কর্তৃপক্ষ চিহ্নিত করেছে। মাদকবিরোধী অভিযানে নিহতের ঘটনাগুলো বিচার বহির্ভূত হত্যাকা- নয় বলেও দাবি জানান তিনি।


আপনার মন্তব্য প্রেরণ করুন

আপনার ই-মেইল প্রকাশিত হবে না। প্রয়োজনীয় ফিল্ডসমূহ * এর মাধ্যমে চিহ্নিত করা হয়েছে

*

پیام رهبر انقلاب به مسلمانان جهان به مناسبت حج 1441 / 2020
conference-abu-talib
We are All Zakzaky